মোড়েলগঞ্জে মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগ ৭০ লাখ টাকার ক্ষতি

0
57

বাগেরহাট প্রতিনিধি: বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে বহরবুনিয়ায় একটি মৎস্য ঘেরে বিষ প্রয়োগে ৭০ লাখ টাকার ক্ষতিসাধন করেছে দুর্বৃত্তরা।এ ঘটনায় প্রতিবাদ করায় চেয়ারম্যানের ওপর হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে ওই দুবৃত্তরা। এলাকার যৌথ এ মৎস্য ঘেরটির ভূক্তভোগীরা বিচারের দাবিতে (২ডিসেম্বর) সোমবার সকালে কলেজ বাজারে বিক্ষোভ করেছেন। এলাকাবাসি ও ভূক্তভোগী মৎস্যজীবি পরিবার জানান।
১০/১৫ বছর ধরে পূর্ব বহরবুনিয়া গ্রামে ৩শ’ বিঘার একটি মৎস্য ঘের ওই এলাকার ৬০ পরিবার যৌথ ভাবে মৎস্য ঘের পরিচালন করে আসছেন। পূর্ব শক্রুতার জের ধরে একটি পক্ষ রোববার ওই ঘেরে বিষ প্রয়োগ করে। ঘের মালিকরা সকাল থেকে মাছ মরে ভেসে উঠতে দেখতে পায়। পরবর্তীতে ক্রমন্বয়ে বিকেল থেকে সোমবার পর্যন্ত রুই, কাতলা, বাগদা চিংড়ি সহ দেশীয় বিভিন্ন প্রজাতীর মাছ ঘেরে ভাসতে থাকে। এতে ঘের মালিকদের কয়েক শ’ মন সাদা মাছ ও গলদা চিংড়ি মরে প্রায় ৭০ লাখ টাকার ক্ষতিসাধন হয়েছে বলে ভূক্তভোগীরা জানান।
যৌথ এই ঘের মালিক ইউপি চেয়ারম্যান রিপন তালুকদার, আব্দুল লতিফ খান, শাহাজাহান মহরী, হেমায়েত হাওলাদার, সাবেক মেম্বর হারুন হাওলাদার সন্তোষ শীল, মৎস্যজীবি আব্দুর রহমান হাওলাদার, ওলিউর রহমান হাওলাদার, আইয়ুব আলী হাওলাদারসহ ঘেরের সাথে সম্পৃক্তরা বলেন, আর মাত্র ১৫দিন পরে ঘেরের পানী শুকিয়ে এ মাছ প্রায় ৭০ থেকে ৮০ লাখ টাকায় বিক্রি হবে বলে জানান তারা । এ ঘরে থেকে বিগত বছরগুলোতে ৫০ থেকে ৬০ লাখ টাকার মাছ বিক্রি করছে তারা। এ এলাকার ৬০টি পরিবার সারা বছরের আয়ের উৎস ৮০ বিঘা নামে পরিচিত এ ঘেরটি। শক্রুতা মূলক বিষ প্রয়োগের কারনেই দুদিন ধরে মাছ মরে ভেসে উঠছে। এ ঘটনায় তারা দৃষ্টান্ত মূলক বিচারের দাবি জানিয়েছেন।
এদিকে সোমবার সকালে কলেজ বাজার এলাকায় এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ইউপি চেয়ারম্যান রিপন তালুকদারের ওপর হামলা চালায় একদল দুর্বৃত্তরা। তাৎক্ষনিক স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে।
এ সর্ম্পকে ইউপি চেয়ারম্যান রিপন তালুকদার বাংলালাইভ ২৪.কমকে বলেন, সকালে কলেজ বাজারে ঘেরে বিষ প্রয়োগের ঘটনা প্রতিবাদ করলে জাকির ফরাজীর নেতৃত্বে তার ভাই ছগির ফরাজী সহ ৭/৮ জনের একটি সংঘবদ্ধ দল আমার ওপরে আক্রমন চালায়।
আমাকে স্থানীয় লোকজন এসে উদ্ধার করে। বিষয়টি তিনি তাৎক্ষনিক প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের জানিয়েছেন। হামলাকারিদের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করবেন বলে প্রস্তুতি নিচ্ছেন তিনি।


একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here