৫০ হাজার টাকা পুরস্কার; ২ মাদক ব্যবসায়ীকে ধরিয়ে দিলে

0
373

অনলাইন ডেস্ক:

পুলিশ ও র‌্যাবের মাদকবিরোধী অভিযানের মুখে এলাকা ছেড়েছে বেনাপোল-শার্শার মাদক ব্যবসায়ীরা। মূলত শার্শার দুই মাদক ব্যবসায়ী বন্দুকযুদ্ধে নিহত হওয়ার পর মাদক ব্যবসায়ীদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এরপরই এলাকা ছাড়ে তারা। পাশাপাশি এখানকার শীর্ষ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে ধরিয়ে দিলে ৫০ হাজার টাকা পুরস্কারের ঘোষণা দিয়েছে পুলিশ।

সারাদেশের মতো যশোরেও পুলিশ-র‌্যাব অভিযান পরিচালনা করছে। অভিযানের ফলে গত ২১ মে ভোরে শার্শার মাদক ব্যবসায়ী শার্শা উপজেলার বাগআঁচড়া ইউনিয়নের জামতলার ট্যাংরা গ্রামের রহমান গাজীর ছেলে সিরাজুল ইসলাম দুখি বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। তার নামে শার্শা থানায় ৫টি মামলা ছিল

একই দিন উপজেলার মহিষকুড়া গ্রামের হারুনার রশিদের ছেলে মুত্তাজুল মোড়ল বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। তার নামে শার্শা থানায় অস্ত্র আইনে চারটি ও দুটি মাদক মামলা ছিল।

বন্দুকযুদ্ধে দুজন নিহতের পর অন্য মাদক ব্যবসায়ীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। সেই সঙ্গে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। তবে কেউ কেউ গোপনে মাদক কারবার চালিয়ে যাচ্ছে।

এদিকে, বেনাপোল-শার্শার শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীদের ধরিয়ে দিতে পারলে পুরস্কারের ঘোষণা দিয়েছে পুলিশ। এর মধ্যে শীর্ষ দুই মাদক ব্যবসায়ীকে ধরিয়ে দিতে পারলে ২৫ হাজার টাকা পুরস্কার দেয়া হবে বলে জানায় পুলিশ।

এরা হলো- বেনাপোল পোর্ট থানার ভবারবেড় কলুপাড়ার মৃত হোসেন আলীর ছেলে রবিউল ইসলাম ওরফে বাবা কালু ও বারপোতার মুন্তাজ আলী মোড়লের ছেলে রিয়াজুল ইসলাম ওরফে শরি মেম্বার ওরফে বোতল শরি।

পাশাপাশি অন্য চার মাদক ব্যবসায়ীকে ধরিয়ে দিতে পারলে ১০ হাজার টাকা করে পুরস্কারের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এরা হলো- শার্শার কোটা পশ্চিমপাড়ার শের আলী দফাদারের ছেলে আনোয়ার হোসেন আনা ওরফে বাবা আনা, শার্শার কাশিপুর-গোপীনাথপুরের মৃত জয়নালের ছেলে আসাদুল ইসলাম (আশা), বেনাপোল পোর্ট থানার রঘুনাথপুরের (বর্তমানে নারায়ণপুর) মৃত কেরামত মল্লিকের ছেলে বাদশা মল্লিক এবং রঘুনাথপুরের গোলাম মোস্তফা ওরফে গোলা ঢাকালের ছেলে জাহাঙ্গীর।

পুরস্কার ঘোষণা ও যশোর পুলিশের ১০০ দিনের মাদকবিরোধী অভিযানের আগেই এসব মাদক ব্যবসায়ী এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। এদের মধ্যে কয়েকজন ভারতে অবস্থান করছে। নতুন কৌশল হিসেবে এসব মাদক ব্যবসায়ীদের বাড়িতে পাহারা বসিয়েছে পুলিশ।

এ বিষয়ে বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশের ওসি অপূর্ব হাসান বলেন, পুরস্কার ঘোষিত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীরা পলাতক। মাদকবিরোধী অভিযানে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণে তৎপর রয়েছে পুলিশ। শীর্ষ তালিকার বাইরেও অন্য মাদক ব্যবসায়ীদের ধরতে অভিযান চলছে।