২০১৮ এর দু’টো নির্বাচনকে আমরা চ্যালেন্স হিসেবে গ্রহণ করেছি : এমপি মিজান

0
685

খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক এমপি বলেছেন, ২০১৮ এর দু’টো নির্বাচনকে আমরা চ্যালেন্স হিসেবে গ্রহণ করেছি। এ নির্বাচনে বিজয়ের মধ্য দিয়ে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠন করবো ইনশাল্লাহ। আর ২০১৮ এর নির্বাচনে বিজয় অর্জন করতে হলে সংগঠনকে সুসংগঠিত করতে হবে। সেজন্যে ওয়ার্ড কমিটির শুন্যপদে এবং নিস্ক্রিয় ব্যক্তিদের বাদ দিয়ে নতুনদের কমিটিতে অন্তর্ভূক্তি করে ইউনিট ও সেন্টার কমিটি গঠন করতে হবে। তিনি আরো বলেন, শুধু আওয়ামী লীগ নয় সহযোগী সংগঠনকেও ঢেলে সাজাতে হবে। সহযোগী সংগঠন আওয়ামী লীগের অন্যতম শক্তি। এই শক্তিকে সংগঠনিকভাবে কাজে লাগিয়ে বিজয় নিশ্চিত করতে হবে। সেজন্যে নিজেদের মধ্যে সকল দ্বিধা দ্বন্দ্ব ভুলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করে দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনাকে পুনরায় রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আনতে হবে।
গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বুলু বিশ্বাসের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক তসলিম আহমেদ আশার পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, খুলনা মহানগর আাওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও ১৪ দলের সমন্বয়ক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান এমপি। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগ নেতা শেখ হায়দার আলী, কাজী এনায়েত হোসেন, মল্লিক আবিদ হোসেন কবির, আবুল কালাম আজাদ কামাল, শ্যামল সিংহ রায়, মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, শেখ ফজলুল হক, অধ্যাপক আলমগীর কবির, এ্যাড. খন্দকার মজিবর রহমান, কামরুল ইসলাম বাবলু, শেখ নুর মোহাম্মদ, মো. শাজাহান হাওলাদার, টিএম আরিফ, চ. ম. মুজিবর রহমান, মুন্সি আইয়ুব আলী, শেখ আবিদ উল্লাহ, মো. নুর ইসলাম, জাহিদুল হক, ইউসুফ আলী খান, মো. মোতালেব মিয়া, শেখ মো. রুহুল আমিন, সরদার আব্দুল হালিম, মো. জাকির হোসেন, খন্দকার বাহাউদ্দিন, শিপার হায়দার, মোক্তার হোসেন, মো. রুহুল আমিন, কাউন্সিলর মাহমুদা বেগম, নুর জাহান রুমি, হাবিবুর রহমান মাষ্টার, মাসুম খান, আব্দুস সালাম ঢালী, কবীর পাঠান, মনির হোসেন, রুম্মান আহমেদসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।
সভায় ১৮নং ওয়ার্ডে আহবায়ক কমিটি গঠন করা হবে বলে সিদ্ধান্ত হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।