হাইব্রিড ও অনুপ্রবেশকারীরা পাচ্ছেন না আ’লীগের প্রাথমিক সদস্য টিকিট

0
544

নিজস্ব প্রতিবেদক:
হাইব্রিড ও অনুপ্রবেশকারীদের কোন অবস্থাতেই আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য টিকিট দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান। তিনি বলেন, দলীয় সভানেত্রী দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন হাইব্রিড, অনুপ্রবেশকারী এবং দলের মধ্যে বিশৃংখলাকারীদের তালিকা করতে। সে অনুসারে দলের ভেতরে এবং বাইরে মিলে তালিকা করা হচ্ছে। তাদের কোন অবস্থাতেই দলের সাধারণ সদস্য টিকিটসহ কোন স্থান দেয়া হবে না। এ ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।
মঙ্গলবার বেলা ১১টায় হোটেল সিটি ইনন-এ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটি আয়োজিত খুলনা বিভাগীয় নেতৃবৃন্দের সাথে কেন্দ্রীয় নেতাদের যৌথ মতবিনিময় সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরও বলেন, সমাজ ও রাষ্ট্র বিরোধী কর্মাকা-ের সাথে জড়িত তাদের আওয়ামী লীগের স্থান হবে না। হাইব্রিড বা অনুপ্রবেশকারীরাই অবৈধ কাজের সাথে জড়িত থাকে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা অর্থের পেছনে ছুটে না। যারা ক্যাসিনো বা জুয়া, মাদকের সাথে জড়িত তারা সবাই হাইব্রিড ও অনুপ্রবেশকারী। আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাকর্মীরা বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা সর্বোপরি দেশের কথা ভেবে রাজনীতি করে। তারা কখনও মানুষের ক্ষতি করে রাজনীতি করে না। আসন্ন সম্মেলনে ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করা হবে বলে তিনি জানান।
যৌথ মতবিনিময় সভায় খুলনা মহানগরীর সকল ওয়ার্ডের সম্মেলন ৩০ নভেম্বরের মধ্যে এবং মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন ৭ ডিসেম্বর ও এছাড়া আগামী ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে খুলনা জেলাসহ সকল জেলা কমিটির সম্মেলন শেষ করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়। এরমধ্যে বাগেরহাট সদর উপজেলা ৪ নভেম্বর, বাগেরহাট পৌরসভা ৭ নভেম্বর, কচুয়া ১০ নভেম্বর, চিতলমারী ৫ নভেম্বর, মোল্লাহাট ৯ নভেম্বর, ফকিরহাট ৬ নভেম্বর, রামপাল ২২ নভেম্বর, মোংলা ২৩ নভেম্বর, মোড়েলগঞ্জ ৯ নভেম্বর, শরণখোলা ৮ নভেম্বর, সাতক্ষীরা ও নড়াইল জেলাসহ সকল উপজেলার সম্মেলন নভেম্বরের মধ্যে, মাগুরা পৌরসভায় ৩০ অক্টোবর, সদর উপজেলা ৩১ অক্টোবর, মোহাম্মদপুর ০১লা নভেম্বর, শালিখা ১২ নভেম্বর, মহেশ্বপুর নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে, কালীগঞ্জ ৩০ অক্টোবরে সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত হয়। সর্বোপরি আগামী ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে সকল উপজেলা ও জেলার সম্মেলন করতে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্যদের প্রতি কঠিনভাবে আহবান জানানো হয়।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক ও জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি’র পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, নির্বাহী সদস্য এস এম কামাল হোসেন, পারভীন জামান কল্পনা, এ্যাড. আমিরুল আলম মিলন, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন দোদুল এমপি, স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য এমপি, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশীদ, সাইফুজ্জামান শেখর এমপি, বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ কামরুজ্জামান টুকু, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগ ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত অধিকারী, কবিরুজ্জামান মুক্তি এমপি সহ ১০ জেলার সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক এবং সংসদ সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন। এসময়ে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত থেকে সহযোগিতা করেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ দপ্তর সম্পাদক মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগ প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক জোবায়ের আহমেদ খান জবা, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ উপ-দপ্তর সম্পাদক হাফেজ মো. শামীম, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ উপ-প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক মো. মফিদুল ইসলাম টুটুল।
সভা শুরুর শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চাচী, শেখ হেলাল উদ্দিন এমপি ও সেখ সালাহ উদ্দিন জুয়েল এমপির মাতা রিজিয়া নাসেরের দীর্ঘায়ু ও সুস্থতা কামনা করে দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া পরিচালনা করেন কেন্দ্রিয় নেতা এস এম কামাল হোসেন।