সড়ক মৃত্যুর দায় কার?

0
781

মো. জয়নাল ফরাজী:

বাংলাদেশ সাম্প্রতিক সময়ে কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে দুর্ঘটনা। সড়ক যেন নয়, মত্যুর খড়গ। প্রতিটি যানবাহন যেন নয়, সর্বোচ্চ গতিতে ধেয়ে আসা মত্যুদূত! এমন কোন দিন নেই, গণমাধ্যমগুলোর শিরোনাম হচ্ছে না সড়কপথে মত্যুর খবর। এমন কোন দিন নেই, যে দিন, সড়ক দুর্ঘটনায় স্বজন হারানো মানুষের আর্তনাদ ভারী হচ্ছে না বাতাস। কেন সড়কে মত্যুর মিছিল আর বাতাস লাশর গন্ধ? দায় কার? কে দেবে সুদুত্তর?
সড়ক দুর্ঘটনায় আমরা অনেক প্রতিভাবান ব্যক্তি হারিয়েছি। যেমন হারিয়েছি চলচিত্রকার তারেক মাসুদ কিংবা মিশুক মুনিরকে। এরকম কতশত বিরল প্রতিভা প্রতিদিন সড়ক দুর্ঘটনায় আমাদের হারাত হচ্ছে তার ইয়ত্তা নেই।
বলার অবকাশ রাখে না, আমাদের দেশে অধিকাংশ সড়ক দুর্ঘটনার মূল চালকের অদক্ষতা ও অপেশাদারিত্ব। যেমন চালকদের বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো, গাড়ি চালানোর সময় উদাসীনতা, গাড়ি বের করার পূর্ব ত্রুটি চেক না করা, ত্রুটিযুক্ত গাড়ি ব্যবহার করা, রোড সাইন না বুঝে যত্রতত্র ওভারটেক মানসিকতা, ট্রাফিক আইন সম্পর্কে অজ্ঞতা, বিশ্রাম ব্যতীত একটানা গাড়ি চালনা ইত্যাদি। সাথে যুক্ত আছে সড়কপথের বেহাল অবস্থা ও সরকারি অবকাঠামোগত নানা সমস্যা।
গত ১৭ অক্টাবর’১৭ ইং তারিখ খুলনা নগরীর তেঁতুলতলা মোড়ে বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালিয়ে ডিভাইডারের সাথে ধাক্কা লেগে গুরুতর আহত হন প্রতিভাবান ছাত্রলীগ নেতা শেখ আলাউদ্দিন আকাশ। ৮ দিন মত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে ২৫ অক্টোবর বুধবার সে প্রাণ হারান। পরিবারের বড় ছেলের এমন মত্যুতে শোক বিহল তার পরিবার। যদি একটু সচেতন হয়ে সে মোটরসাইকেল চালাতো কিংবা হেলমেট ব্যবহার করতো তাহলে হয়ত তার এমন মত্যু আমাদের দেখতে হতো না।
১৯৯৩ সালের ২২ অক্টোবর চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের স্ত্রী জাহানারা কাঞ্চন সড়ক দুর্ঘটনায় মত্যু বরণ করলে তখন থেকেই জনপ্রিয় এ চিত্রনায়ক নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন। নিসচা নামের এক সংগঠনের মাধ্যম ২২ অক্টোবরকে ‘জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস’ হিসেবে সরকারিভাবে এ বছরই প্রথম উদযাপন করা হয়েছে। এ সংগঠনটির শ্লোগান ‘পথ যেন হয় শারি, মত্যুর নয়’। এখানে আমার প্রশ্ন হচ্ছে সব দোষই কি প্রশ্নের? নাকি আইনের? নাকি চালকেরও?
বিশেষ করে আমাদের দেশে দেখা যায়, সড়ক দুর্ঘটনা রোধ জনগনকে সচেতন করতে সভা, সেমিনার কিংবা মানববন্ধন হচ্ছে। আসলে এতে কি মানুষ সচেতন হচ্ছে? তাছাড়া হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল চালানো নিষেধ থাকলেও উঠতি বয়সের কেউই এটি মানছে না। বেপরোয়া গতির সাথে ঢেউ দিয়ে মহড়া দেয়া সমাজের জন্য কতটা বিপজ্জনক তা কি চালক জানে?
আমার মতে, আমাদের দেশে সড়ক দুর্ঘটনা রোধে সবার আগে প্রয়োজন আইনের প্রয়াগ। আইন আছে প্রয়োগ নেই তবে তা সমস্যা সমাধানের কোন সম্ভাবনাও নেই। প্রশাসনের কড়া নজরদারির ফলে কিছুটা হলেও কমতে পারে সড়ক দুর্ঘটনা।