স্বাস্থ্য কর্মকর্তার মৃত্যু; চেয়ারে বসা অবস্থায়

0
392

নিজস্ব প্রতিনিধি:

বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. তাপস কুমার দাস (৪৯) দায়িত্বরত অবস্থায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে কচুয়া উপজেলা হাসপাতালে তার অফিস রুমে চেয়ারে বসা অবস্থায় তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হন। দ্রুত বাগেরহাট সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা ডা. তাপসকে মৃত ঘোষণা করেন। বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. অরুণ চন্দ্র মন্ডল দুপুরে বলেন, প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার সকালে কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তাপস কুমার দাস তার কার্যালয়ে আসেন। সেখানে দাফতরিক কাজ করার সময়ে হঠাৎ তিনি তার সহকর্মীদের ডেকে তার বুকে ব্যথা অনুভূত হচ্ছে বলে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন।

এ সময় তার সহকর্মীরা তার চিকিৎসা শুরু করেন। তার অবস্থার কোনো উন্নতি না হওয়ায় তাকে দ্রুত বাগেরহাট সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে হাসপাতালের অফিস রুমে চেয়ারে বসা অবস্থায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছেন চিকিৎসকরা।

ডা. তাপস কুমার দাস বরিশাল মেডিকেল কলেজে থেকে এমবিবিএস পাস করে ২১তম বিসিএসে কৃতকার্য হন। ২০০৩ সালের ২১ মে মেডিকেল অফিসার হিসেবে স্বাস্থ্য বিভাগে যোগদান করেন। সর্বশেষ তিনি ২০১৬ সালে পদোন্নতি পেয়ে কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

তিনি বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলার চরকাঠী দাসপাড়া এলাকার মৃত. শরৎচন্দ্র দাসের ৭ ছেলে-মেয়ের মধ্যে সবার ছোট ছিলেন। জয়িতা দাস (১৫) নামে তার একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। প্রায় ৩ বছর আগে তার স্ত্রী ডা. তপোতি পোদ্দার মারা যান।

ডা. তাপস কুমার দাসের মৃত্যুর খবরে তাৎক্ষণিক বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ছুটে যান মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মীর শওকত আলী বাদশা এমপি, কচুয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এসএম মাহফুজুর রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান হাজরা ওবায়দুর রেজা সেলিম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজমা সরোয়ার, বাগেরহাট প্রেস ক্লাবের সভাপতি আহাদ উদ্দিন হায়দার, সহ-সভাপতি নীহার রঞ্জন সাহা, সাবেক সভাপতি শেখ আহসানুল করিম, বাবুল সরদার ও বাগেরহাট জেলা স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের আহ্বায়ক ডা. মোশাররফ হোসেন প্রমুখ।