সুন্দরবনে অবৈধভাবে মাছ শিকারে রাজি না হওয়ায় শরণখোলায় দু’জনকে পিটিয়ে আহত : থানায় মামলা

0
587

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি ঃ
সুন্দরবনে অবৈধভাবে মৎস্য শিকার করতে রাজী না হওয়ায় বাগরহাটের শরণখোলায় ২ জনকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করার ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে । ঘটনাটি ঘটেছে ২১ অক্টোবর শনিবার বিকেল উপজেলার ধানসাগর ইউনিয়নের সুন্দরবন সংলগ্ন পশ্চিম রাজাপুর গ্রামে। আহতদের শরণখোলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
শরণখোলা থানায় দায়েরকৃত মামলা ও আহতের পরিবার সূত্র জানায়, শনিবার বিকেলে ওই এলাকার বাসিন্দা শাহআলম হাওলাদারের ছেলে শাহাদাত হাওলাদার (২৮) এবং মজিদ হাওলাদারের ছেলে আসাদুল হাওলাদার (৩০) বটতলা বাজারে যান। কিছু সময় পর সুন্দরবনে অবৈধভাবে কারেন্ট জাল দিয়ে মাছ শিকার করতে না যাওয়ার বিষয় নিয়ে মৎস্য ব্যবসায়ী কামাল তালুকদার ও তাঁর সহযোগিদের সাথে ওই দু’শ্রমিকের কথা কাটাকাটি শুরু হয়। এক পর্যায়ে কামালের নেতৃত্বে তাঁর সহযাগিরা জেলে সবুর আকন, সোহাগ হাওলাদার ও বায়োজীদ সহ ৮-১০ জন মিলে তাদেরকে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করেন। খবর পেয়ে শ্রমিক আসাদুলের মা মমতাজ বেগম (৫৫) ঘটনাস্থলে গেলে তাকেও শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করেন কামালের সহযোগিরা। পরে গুরুতর আহতদের উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয় । আহতরা হাসপাতালে বসে সাংবাদিকদের জানায়, পশ্চিম রাজাপুর গ্রামের কামাল তালুকদার ও সবুর আকন গং দীর্ঘদিন যাবৎ সুন্দরবনের অগিকান্ড প্রবন এলাকায় কারেন্ট জাল দিয়ে অবৈধভাবে বিভিন্ন প্রজাতির ক, শিং,ও মাগুর মাছ শিকার করে হাজার হাজার টাকা উপার্জন করেছে । তাদের কথামত সুন্দরবনে মাছ শিকার না যাওয়ায় এ হামলা ও মারপিটের ঘটনা ঘটেছে ।
অপরদিকে মৎস্য ব্যবসায়ী মোঃ কামাল হোসেন তালুকদার জানান, মারপিটের ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু তিনি কোন ভাবেই জড়িত নন। বরং উভয় পক্ষকে মারামারি না করার জন্য বাধা দিয়েছেন। প্রতিপক্ষরা বিষয়টি ভিন্ন খাতে প্রবাহের জন্য তাঁর বিরুদ্ধে কাল্পনিক অভিযোগ করেছেন বলে দাবী করেন তিনি।
এ ব্যপারে শাহাদৎ হাওলাদার বাদী হয়ে কামাল তালুকদারকে প্রধান আসামী করে ৯ জনের নামে শরণখোলা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। যার নং ১৪ তারিখ ২২/১০/২০১৭ ।