সাতক্ষীরার দেবহাটা নাংলায় সরকারি গাছ বিক্রয় করে আত্নসাতের অভিযোগ

0
888

দেবহাটা প্রতিনিধি : দেবহাটা নাংলায় সরকারি গাছ বিক্রয় করে আত্নসাতের অভিযোগ। উপজেলার নওয়াপাড়া ৮নং ইউপি সদস্য কতৃক থানায় অভিযোগ দায়ের।গাছ কাটার শেষ পর্যায়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে পন্ড হয়ে যায়। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার সকাল ৭ টার দিকে ৪ নং নওয়াপাড়া ইউনিয়নের নাংলা বাজার এলাকায়। এঘটনায় নওয়াপাড়া ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য ও উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুজিবর রহমান বাদি হয়ে দেবহাটা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। সরোজমিনে দেখা যায়, স্থানীয় কাঠ ব্যবসায়ী মৃত আজিজার গাজীর পুত্র হামিদ গাজী লোকজন নিয়ে নাংলা বাজার সংলগ্ন মানবতার কল্যাণ ফাউন্ডেশনের সামনে থেকে প্রায় অর্ধলক্ষ টাকা মুল্যের একটি মেহগুনি গাছ কাটছে। সরকারি গাছ কাটার বিষয় তার কাছে জানতে চাইলে তিনি গাছটি সাবেক ইউপি সদস্য ও এক আওয়ামীলীগ নেতার কাছ থেকে ক্রয় করেছেন বলে জানান। তাৎক্ষনিক ভাবে বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাজিয়া আফরীনকে জানালে বিষয়টি তিনি শুনেছেন বলে জানিয়ে বলেন, আমি বিষয়টি শোনা মাত্রই তাদেরকে দেবহাটা থানায় অভিযোগ দায়ের করার পরামর্শ দিয়েছি। এ দিকে অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, নাংলা বাজারের পাশের্^ অবস্থিত একটি মেহগুনি গাছ নাংলা গ্রামের এমদাদ বিশ^াসের পুত্র আওয়ামীলীগ নেতা মাহমুদুল হক লাভলু ও একই এলাকার মৃত কালাম গাজীর পুত্র সাবেক ইউপি সদস্য একাধিক নাশকতা মামলার আসামী বিএনপি নেতা শওকাত আলী গাজী স্থানীয় কাঠ ব্যবসায়ী মৃত আজিজার গাজীর পুত্র হামিদ গাজীর নিকট ৩৭ হাজার টাকায় বিক্রয় করে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে গাছটি কর্তন করার সময় বিষয়টি স্থানীয়দের নজরে আসে। পরে স্থানীয়রা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাজিয়া আফরীনের কাছে জানালে তিনি থানায় অভিযোগ দেওয়ার কথা বলেন। পরে ৮নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মুজিবর রহমান বাদি হয়ে দেবহাটা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এব্যাপারে মাহমুদুল হক লাভলুর কাছে ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সত্যতা স্বীকার করে বলেন, গাছটি আমাদের এলাকার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “আদর্শ ¯েচ্ছাসেবী সমাজ কল্যান সমিতি” এর উন্নয়ন কাজের জন্য বিক্রয় করা হয়েছে। এবিষয়ে দেবহাটা থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) উজ্জল কুমার মৈত্র জানান, ইউপি সদস্যের অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত চলছে, গাছের প্রকৃত মালিক কে এ ব্যপারে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।