শিশু ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া বাড়ছে : আজ তাপমাত্রা আরও কমার সম্ভাবনা

0
842

কামরুল হোসেন মনি:
খুলনা অঞ্চলে গত ৪ দিনের তাপমাত্রা ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমেছে। সেই সাথে বেড়েছে বাতাসের গতিবেগ। আজ সোমবার খুলনা অঞ্চলে আবারও তাপমাত্রা কমার সম্ভাবনা রয়েছে। এ রকম পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলোয় রোগীদের ভিড় বাড়ছে। বিশেষ করে শিশুদের ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা গত কয়েক দিনের তুলনায় বৃদ্ধি পাচ্ছে। বেড স্বল্পতা থাকায় মেঝেতে চিকিৎসা প্রদান করা হচ্ছে। গড়ে প্রতিদিন শিশু হাসপাতালে ডায়রিয়া ১৫ ও নিউমোনিয়া ৫ শিশু চিকিৎসা নিচ্ছে।


খুলনা আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিরুল আজাদ বলেন, দিনকে দিন খুলনা অঞ্চলে তাপমাত্রা কমতির দিকে রয়েছে। বিভিন্ন অঞ্চলে শৈত্য-প্রবাহ চলমান রয়েছে। এছাড়া সারা দেশের মধ্যে রোববার সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ছিল দিনাজপুরে ৫ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এরপর চুয়াডাঙ্গায় সর্বনি¤œ তাপাত্রা ছিল ৫ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও যশোরে ছিল ৬ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এছাড়া খুলনাঞ্চলে ছিল ৮ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আজ সোমবার খুলনা অঞ্চলে আবারও তাপমাত্রা কমার সম্ভাবনা রয়েছে। এই মাসের মধ্যে আরও ২-১টি শৈত্য-প্রবাহের সম্ভাবনা দেখা দিতে পারে। তার দেওয়া তথ্য মতে, গত ৪ জানুয়ারি খুলনায় সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ছিল ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও সর্বোচ্চ ছিল ২০ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, ৫ জানুয়ারি ছিল সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও সর্বোচ্চ ছিল ২২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, ৬ জানুয়ারি ছিল সর্বনি¤œ ৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও সর্বোচ্চ ছিল ২৩ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই তথ্য মতে গত কয়েকদিনে খুলনা অঞ্চলে ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমেছে।


খুলনা শিশু হাসপাতাল সূত্র মতে, এ রকম আবহাওয়ার কারণে দিনকে দিন শিশু রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এর মধ্যে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেশি। গত ১ জানুয়ারি থেকে ৬ জানুয়ারি পর্যন্ত নিউমোনিয়া আক্রান্ত শিশু রোগীর সংখ্যা ৩৪ এবং ডায়রিয়া আক্রান্ত হয়েছে ৯০ জন। এই তথ্য মতে, গড়ে প্রতিদিন নিউমোনিয়ায় ৫ জন ও ডায়রিয়ায় ১৫ জন করে আক্রান্ত হচ্ছে। এছাড়া রোববারও ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া মিলে আরও ২৫-৩০ জন নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে।
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু বিভাগের সহকারী রেজিস্ট্রার শিশু বিশেষজ্ঞ ডাঃ মনোজ কুমার বলেন, গত কয়েকদিনের তুলনায় দিনকে দিন শিশু রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিশেষ করে শিশুরা ডায়রিয়াসহ শ্বাসকষ্টের পাশাপাশি ঠা-াজনিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। তিনি এই সময়ে মায়েদেরকে তার শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ানোর পরামর্শ দিচ্ছেন। এছাড়া যে সব শিশুদের ৬ মাস পূর্ণ হয়েছে তাদেরকে খিচুড়ি খাওয়ানোর পরামর্শ দেন। এছাড়া এরকম আবহাওয়ায় বাচ্চাদের না পারলে ঘর থেকে বের না হওয়ার পরামর্শ দেন। তার দেওয়া তথ্য মতে প্রতিদিন ডায়রিয়ায় ২৫ শতাংশ ও শ্বাসকষ্টসহ ঠা-াজনিত শিশু রোগীর সংখ্যা ৫০ শতাংশ হারে আগের তুলনায় বৃদ্ধি পেয়েছে।
শিশু হাসপাতালের মেডিসিন ওয়াডের্র সিনিয়র স্টাফ নার্স মরিয়াম জানান, দিনে-রাতে সমানতালে শিশুরা ডায়রিয়া নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে। তাদেরকে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হচ্ছে। যার মধ্যে ডায়রিয়া রোগীর সংখ্যাই বেশি দেখা যাচ্ছে। তিনি বলেন, কোন বেড বা কেবিন খালি পাওয়া যাচ্ছে না। অনেক রোগীর মা-বাবা দুইদিন আগে থেকে এসে কেবিনগুলো বুক করে যাচ্ছেন।


মেয়ে জিনিয়ার বয়স ৮ মাস। গত কয়েকদিন ধরে ডায়রিয়ার পাশাপাশি বমিও হচ্ছে। শিশুটির মা নূরজাহান জানান, নড়াইল থেকে এসে তার মেয়েকে চিকিৎসা করানো হচ্ছে। প্রথম দিনে মেয়ে ডায়রিয়া ও বমি করায় ঘাবড়ে গিয়েছিলাম। এখানে চিকিৎসা হওয়ার পর এখন বমি নেই, তবে ডায়রিয়া আগের চেয়ে কমতির দিকে যাচ্ছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন এখন সে আগের চেয়ে সুস্থ। শুধু শিশুরা আক্রান্ত হচ্ছে না। বয়স্করাও শ্বাসকষ্টসহ নানা ধরনের ঠা-াজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। খুমেক হাসপাতালের মেডিসিন ওয়ার্ডে রোগীর চাপ বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার মধ্যে শ্বাসকষ্টজনিত রোগীর সংখ্যাই বেশি।