শিরোমনি ও যাব্দিপুর রেলক্রসিং গেটম্যান না থাকায় শংকা দূূর্ঘটনার

0
680

ফুলবাড়ীগেট (খুলনা) প্রতিনিধি, খুলনাটাইমস:
নগরীর খানজাহান আলী থানাধীন শিরোমণি মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন রেলক্রসিংগেট এবং যাব্দিপুর রেলক্রসিং গেট দুটি অরক্ষিত। দূর্ঘটনা এড়াতে গেট থাকলেও নাই গেটম্যান ফলে ট্রেন আসলেও ফেলানো হচ্ছেনা গেটের বেরিয়্যাল(গেট)। এই অবস্থায় দীর্ঘদিন ধরে হাজার হাজার পথচারী জীবনের ঝুকি নিয়ে চলাচল করছে। সম্প্রতি বড় ধরনের দূর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাওয়ায় এ বিষয়টি এলাকাবাসী সহ সচেতন মহলের দৃষ্টিতে আসে।
দূর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাওয়া ব্যাক্তিদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঘটনাস্থল ঘুরে দেখাগেছে। খুলনা-যশোর মহাসড়কের শিরোমণি চাল বাজারের মধ্যে দিয়ে শিরোমণি যাওয়ার ব্যাস্ততম সড়কের মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন রেলক্রসিং এ গেটে রয়েছে বেরিয়্যাল(গেট), নির্মিত হয়েছে গার্ড রুম কিন্তু নাই গেটের বেরিয়্যাল(গেট) ফেলার গেটম্যান। ব্যাস্ততম সড়কটির খোলা অরক্ষিত গেট দিয়ে বিভিন্ন ধরনের যানবাহন এবং পথচারীরা জীবনের ঝুকি নিয়ে রেলক্রসিং পার হচ্ছে। দূর্ঘটনা থেকে বেচে যাওয়া পত্রিকা পরিবেশক মোঃ মফিজ জানান, সম্প্রতি তিনি ভ্যান নিয়ে পার হওয়ার সময় অল্পের জন্য বেচে যায়। তিনি আরো বলেন, শিরোমনি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শিরোমণি হাফিজিয়া মাদ্রসা, শিরোমণি হলি চাইন্ড কিন্ডার গার্ডেন স্কুল সহ অসংখ্য স্কুল ও প্রতিষ্ঠান সহ গ্রামের হাজার হাজার মানুষ জীবনের ঝুকি নিয়ে প্রতিদিন পারাপার হচ্ছে। কয়েকটি দূর্ঘটনাও ঘটেছে । এদিকে ফুলবাড়ীগেট যাব্দিপুর রেলক্রসিং’এ একই অবস্থা বিরাজ করছে। কিছু দিন আগে এই গেটের বেরিয়্যাল বসানো হলেও গেটম্যান দেওয়া হয়নি। ফলে ব্যাস্ততম এই সড়কের রেলক্রসিং’এর গেটের বেরিয়্যাল(গেট) না ফেলায় যে কোন সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটে যাওয়ার আশংকা রয়েছে। এ ব্যাপারে রেলিগেট-আফিলগেট এলাকার দায়িত্বে থাকা মেটম্যান আঃ সাত্তার জানান, দুটি গেটেই গেটম্যান দেওয়ার ইচ্ছা কর্তৃপক্ষের রয়েছে কিন্তু রেল বিভাগের জনবল সংকটের কারনে দেওয়া সম্ভব হয়নি তবে জনবল নিয়োগ হলে দুটি গেটেই গেটম্যান দেওয়ার কথা জানিয়েছেন উর্ধতন কর্মকর্তাগন ।