শরণখোলায় বিকল্প কর্মসংস্থানের দাবীতে জেলে-বাওয়ালীদের নদীতে মানববন্ধন

0
385

শেখ মোহাম্মদ আলী, শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি : বাগেরহাটের শরণখোলায় বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যাবস্থা না করে পূর্ব সুন্দরবনের ল শরণখোলা রেঞ্জকে শতকরা ৯৮ ভাগ অভয়ারন্য ঘোষনার প্রতিবাদ জানিয়ে সমাবেশ ও মানববন্ধন করেছে বনের উপর ্নির্ভরশীল জেলে-বাওয়ালীরা।

বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় শরণখোলা রেঞ্জের সুন্দরবন সংলগ্ন ভোলা নদীর মোহনায় ও খুড়িয়াখালী   বাজারে এ প্রতিবাদ সমাবেশ করেন জেলেরা। এসময় শতশত জেলে-বাওয়ালীরা তাদের জাল-নৌকা নিয়ে সমাবেশ স্থলে হাজির হয়ে প্রতিবাদ জানান। সমাবেশে অংশ নেয়া জেলে জালাল মোল্লা, ইউনুস হাওলাদার, রফিকুল হাওলাদার জানান, তারা বংশগত ভাবে দীর্ঘদিন ধরে সুন্দরবনে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন। এখন হঠাৎ করে বনে মাছ ধরতে না পারলে আমরা চরম বিপদের মধ্যে পড়বো।

খুড়িয়াখালী বাজারের মাছ ব্যাবসায়ী খলিলুর রহমান, জাহাঙ্গীর হোসেন, সেলিম হোসেন সেলু জানান, দীর্ঘদিন ধরে আমরা জেলেদের লাখ লাখ টাকা দাদন দিয়ে ব্যাবসা করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছি। কিন্তু সরকার জেলে-বাওয়ালী বা মৎস্যজীবিদের বিকল্প কোন কর্মসংস্থানের ব্যাবস্থা না করে হঠাৎ সুন্দরবনের শুধু মাত্র শরণখোলা রেঞ্জেকে শতকরা ৯৮ ভাগ অভায়ারন্য্ঘোষনা করেছেন। এ ঘোষনায় আমরা সিডরে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ পুরোপুরি নিঃস্ব হয়ে যাবো। অনেকে এলাকা ছেড়ে অজানার উদ্দেশ্যে পাড়ি জমাতে বাধ্য হবে। তাই বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যাবস্থা না করে সুন্দরবনের অধিকাংশ জায়গা অভয়ারন্য না করার দাবী জানান। অন্যথায় তারা তাদের দাবী আদায়ে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষনা দেন। মানববন্ধনে অংশ নেয়া জেলেদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ডালিম হাওলাদার, পান্না আকন, বাচ্ছু মুন্সি, আঃ রব আকন প্রমুখ।
মানববন্ধন শেষে জেলেদের পক্ষ থেকে শরণখোলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিংকন বিশ্বাসের মাধ্যমে প্রধান মন্ত্রী বরাবরে একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন।

এ ব্যাপারে পূর্ব সুন্দরবনের বিভাগীয বন কর্মকর্তা মোঃ মাহামুদুল হাসান বলেন, অভয়ারণ্য ঘোষনার বিষয়টি সরকারী ভাবে কেবল গেজেট হয়েছে। এটি এখনো বাস্তবায়ন শুরু হয়নি। এ জন্য সরকার সুন্দরবনের উপর নির্ভরশীল জেলে-বাওয়ালীদের বিকল্প কর্মসংস্থানের জন্য ইতিমধ্যে প্রটেকশন অফ দ্য ম্যানগ্রোভ সুন্দরবন নামে একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এটি অনুমোদন হলে বনজীবিদের সুযোগ সৃষ্টি হবে।