লিভারপুলকে জিততে দিল না নাপোলি

0
207

খুলনাটাইমস স্পোর্টস : ঘরের মাঠে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গ্রুপ পর্বে লিভারপুলকে আটকে দিয়েছে নাপোলি। কাল এ্যান ফিল্ডে ইতালিয়ান জায়ান্টদের সাথে ১-১ গোলে ড্র করায় চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ১৬’তে যাওয়া আরো একটু বিলম্ব হলো জার্গেন ক্লপ শিষ্যদের।
নক আউট পর্বে যেতে হলে আগামী ১০ ডিসেম্বর সালজবার্গের বিপক্ষে পরাজয় এড়ানো ছাড়া উপায় থাকলো না লিভারপুলের।
দ্রিস মার্টিনসের ২১ মিনিটের গোলে ২০১৭ সালের এপ্রিলের পর চ্যাম্পিয়ন্স কিংবা প্রিমিয়ার লিগে ঘরের মাঠে প্রথমবারের মত পরাজয়ের শঙ্কায় পড়েছিল অল রেডসরা। তবে ৬৫ মিনিটে ডিয়ান লোভরেনের গোলে ম্যাচে সমতা ফেরায় স্বাগতিকরা। তবে এবার আর প্রিমিয়ার লিগের বেশ কয়েকটি ম্যাচের মত শেষ মুহূর্তে এগিয়ে যাওয়া হয়নি।
ম্যাচ শেষে ক্লপ বলেছেন, ‘আমাদের পথ সবসময়ই কঠিন হয়। এখন সালজবার্গের বিপক্ষে ম্যাচের অপেক্ষায় থাকতে হবে। আজকে যদি নক আউট পর্ব নিশ্চিত করতে পারতাম তবে সেখানে স্বস্তিতে খেলা যেত।’
পাঁচ ম্যাচ পরে নাপোলি যদিও লিভারপুরের থেকে এক পয়েন্ট পিছিয়ে রয়েছে। তবে একদিক থেকে তারা বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের তুলনায় কিছুটা হলেও এগিয়ে রয়েছে। দুই সপ্তাহ পরে তারা গ্রুপে এখনো জয়বিহীন থাকা জেঙ্ককে আতিথেয়তা দিবে। নাপোলি কোচ কার্লো আনচেলত্তি বলেছেন, ‘এখানে ড্র করাটা সহজ নয়। প্রথম থেকেই আমরা চাপে ছিলাম এবং কিছুটা রক্ষণাত্মক কৌশলে খেলছিলাম। তবে এ্যান ফিল্ডে নিজেদের ধরে রাখাটা সবসময়ই কঠিন।’
বরখাস্ত হবার দু:শ্চিন্তা মাথায় নিয়েই লিভারপুল সফরে গিয়েছিলেন আনচেলত্তি। ইতোমধ্যেই সিরি-এ লিগে বাজে পরাফরমেন্সের কারনে ক্লাব সভাপতি অরেলিও ডি লরেনটিস পুরো দল বিক্রির হুমকি দিয়েছেন। একই সাথে মাসের শুরুতে এক সপ্তাহের দীর্ঘ অনুশীলনে আপত্তি জানানোর কারনে খেলোয়াড়দের বিপক্ষে আইনি পদক্ষেপ নেবারও ঘোষণা দিয়েছেন লরেনটিস।
যদিও একমাত্র দল হিসেবে নাপোলি এবারের মৌসুমে ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়নদেও পরাজিত করেছে। আনচেলত্তি বলেন, ‘এটি এমন একটি ক্লাব যেখানে কঠিন সময়ে সকলেই ক্লাবের উত্তরণের আশা করে। আমি সভাপতির সাথে কথা বলেছি। সে সকলের প্রতি দারুণ খুশী। আজকের পাফরমেন্সে তিনি সকলকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।’
ম্যাচের ১৯ মিনিটে গোঁড়ালির ইনজুরিতে পড়ে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন লিভারপুলের ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডার ফাবিনহো। ম্যাচ শেষে তার ইনজুরির বিষয়টি ম্যাচের সবচেয়ে দু:শ্চিন্তার বিষয় বলে উল্লেখ করেছেন ক্লপ। ম্যাচের ২১ মিনিটে মার্টিনস নাপোলিকে এগিয়ে দেন। যদিও ভিএআর প্রযুক্তির সহায়তায় সম্ভাব্য ফাউল ও অফ-সাইডের শঙ্কাকে নাকচ করে দিয়ে গোলের সিদ্ধান্ত বহাল রাখা হয়। বিরতির আগে কোনমতেই ছন্দ ফিরে না পাবার কারনে খেলোয়াড়দের উপর বেশ হতাশা প্রকাশ করেন ক্লপ।
বিরতির পর অবশ্য লিভারপুল গোল পরিশোধে বেশ আগ্রাসী হয়ে উঠে। তারই ধারাবাহিকতায় জেমস মিলনারের কর্ণার থেকে লোভরেন গোল পরিশোধ করলে স্বস্তি ফিরে পায় স্বাগতিক শিবির। এই গোলটিতেও ভিএআর প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছিল। তবে শেষ পর্যন্ত এক পয়েন্ট নিয়েই মাঠ ছাড়ে দুই দল।