লাখো কন্ঠের আমিন ধ্বনিতে শেষ হলো চরমোনাই’র তিনদিন ব্যাপী মাহফিল

0
698
শেখ মোঃ নাসির উদ্দিনঃ
আজ (২৯ নভেম্বর’১৭ইং) সকাল সাড়ে আটটায় দেশ মানবতা ও ইসলাম এবং বিশ্ব মুসলমানদের শান্তি কামনার মাধ্যমে আখেরি মোনাজাতের মধ্যে দিয়ে শেষ হলো বিশ্বের তৃতীয় ইসলামী মহাসম্মেলন চরমোনাই অগ্রহায়ণ এর বার্ষিক মাহফিল।
এর আগে বাদ ফজর বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটির আমীর আমীরুল মুজাহিদ্বীন মুফতী সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করীম, পীর সাহেব চরমোনাই বলেন,
হযরত উমর রাঃ ক্ষুধার্ত প্রজার ক্ষুধা নিবারণের জন্য নিজ কাঁধে আটার বস্তা বয়ে নিয়েছিলেন। আজকাল আমরা এলেম কালাম শিখলেই সম্মানের প্রত্যাশা করি। আমাদের নামে নাড়ে না লাগলে মনে কষ্ট লাগে।  বাবারে, এমন এলেম কিন্তু তোমাকে ধ্বংসের হাত থেকে নাজাত দেবেনা।
আজকাল অনেক আলেম পেছনে পেছনে চরমোনাইর সমালোচনা করেন। কিন্তু কেন? চরমোনাইতে আসার ফলে বিভিন্ন মানুষের দেহে সুন্নতের অবয়ব আসে, নামাজি হয়, আল্লাহর নামে জিকির করে, আল্লাহমুখি হয় এটাইকি দোষ ?
আমরা তো সবসময় বলি,আমাদের ভুল থাকলে ধরিয়ে দিন। তা না করে সমালোচনা করলে কিন্তু কোন ফল হবেনা। কারণ আল্লাহ যাকে উঠাতে চান, দুনিয়ার সকল মানুষ মিলেও তাকে নামাতে পারবেনা।
 
পীর সাহেব চরমোনাই আরও বলেন আমি যখন চরমোনাই ইউনিয়ন নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছিলাম. তখন বিপক্ষ দলের এক নেতা বলেছিলেন”রেজাউল করীম চেয়ারম্যান হলে উন্নয়ন হোক আর নাই হোক,নামাজীর সংখ্যা বাড়বে”। চেয়ারম্যান হওয়ার পর আমি কোন এক সালিসে বসলাম। আজান হলে আমি মসজিদের দিকে চললাম। উপস্থিত লোকজনও লজ্জায় মসজিদে নামাজ পড়তে রওয়ানা দিল। চেয়ারম্যান সাহেব নামাজ পড়তে যাচ্ছেন আর তারা বসে থাকবে,এমনটা কেউ মানতে পারলনা। এজন্য বলি, আপনি নামাজ পড়েন
আর আপনার সমর্থন/ভোট নামাজ কায়েমকারী পায়না।বুঝতে হবে,আপনার নামাজে গলদ আছে। আল্লাহ বলেছেন, সৎকাজে তোমরা সহযোগিতা কর।
 
গত ২৬ নভেম্বর মাহফিল শুরু হয়ে লাখো লোকের মিলন মেলা আজ শেষ হলো। এই তিনদিন শরিয়াত, মারেফাত এবং মাদ্রাসার সম্পর্কে বয়ান অনুষ্ঠিত হয়। দেশের বড় বড় ওলামায়ে কেরামগণ ছাড়া মাওঃ আবুল বাশার পীর সাহেব শাহতলী, সৈয়দ মোবারক করীম, মাওঃ সৈয়দ মোছাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী, মুফতী সৈয়দ মোহাম্মদ ফয়জুল করীম, মাওঃ আব্দুর রশিদ পীর সাহেব বরগুনা, আল্লামা নুরুল হুদা ফয়েজী পীর সাহেব ঝালকাঠি, হাফেজ মাওঃ আব্দুল আউয়াল, অধ্যক্ষ মাওঃ ইউনুচ আহমেদ, সৈয়দ ইছহাক মুহা.আবুল খায়ের মূল্যবান বয়ান করেন। মাহফিলের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ছিলেন বাংলাদেশ মুজাহিদ কমিটির সেক্রেটারী জেনারেল আলহাজ্ব ডাক্তার মোখতার হোসাইন । সুষ্ঠভাবে মাহফিল সম্পন্ন হওয়ায় আল্লাহর কাছে শুকরিয়া আদায় করেন, মিডিয়া কর্মী, আইন শৃঙ্খলা বাহিনী, সেচ্ছাসেবক বাহিনী ও সকল মুজাহিদকে ধন্যবাদ জানান এবং আগামী বছর ২৪,২৫,২৬ ফেব্রুয়ারী’১৮ এর মাহফিলে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।