র‌্যাবের অভিযানে হত্যা মামলার ৬ পলাতক আসামী গ্রেফতার

0
35

নিজস্ব প্রতিবেদক
ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা থানাধীন ভাটোই বাজার এলাকা হতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে হত্যা মামলার ৬ জন পলাতক আসামীকে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব—৬। সোমবার (১৫ এপ্রিল) বিকালে র‌্যাব—৬ (ঝিনাইদহ ক্যাম্প) এর একটি চৌকস আভিযানিক দল গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারে যে, ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা থানার উক্ত হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত ৬ জন পলাতক আসামী ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা থানাধীন ভাটোই বাজার এলাকায় অবস্থান করছে। উক্ত সংবাদ প্রাপ্ত হয়ে অভিযানিক দলটি ঘটনার সত্যতা যাচাই ও আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের উদ্দেশ্যে ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা থানাধীন ভাটোই বাজার হতে একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত ৬ জন পলাতক আসামী— ১। সজীব বিশ্বাস (২০), পিতা—নিখিল বিশ্বাস, ২। বিজয় বিশ্বাস (১৮), পিতা— শিবু বিশ্বাস, ৩। সুশান্ত বিশ্বাস (৩৫), পিতা— গোবিন্দ বিশ্বাস, ৪। সুভাষ বিশ্বাস (৪০), পিতা— গৌর বিশ্বাস, এবং সন্দিগ্ধ আসামী— ৫। প্রশনজিৎ বিশ্বাস (২৬), পিতা— শিবু বিশ্বাস, ৬। পলাশ বিশ্বাস (১৬), পিতা— পরেশ বিশ্বাস, সর্ব সাং— ভগবাননগর, থানা— শৈলকুপা, জেলা— ঝিনাইদহকে ৬ জন পলাতক আসামীকে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত আসামীকে ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা থানায় হস্তান্তর করা হয়।
গত রবিবার (১৪ এপ্রিল) ভিকটিম এর পিতার সাথে কাদা খেলা নিয়ে ভগবাননগর গ্রামস্থ আদিবাসী পাড়া কালি মন্দিরের কাছে আসামীদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। উক্ত বিষয় নিয়ে আসামী এবং ভিকটিমের পরিবারের মধ্যে মনোমালিন্য চলতে থাকে। এরই প্রেক্ষিতে রাত আনুমানিক সাড়ে ৮টায় ভিকটিমের পিতা সুনিল বিশ্বাস(৪৫) ১৫নং ফুলহরি ইউনিয়নের ভগবাননগর গ্রামস্থ জনৈক মোঃ মনিরুল শাহ এর মুদি দোকানের সামনে রাস্তার উপর পৌছালে আসামীরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে হত্যার উদ্দেশ্যে সুনিল বিশ্বাসের পথরোধ করে মারপিট শুরু করে। সুনিল বিশ্বাসের চিৎকারে পাশের দোকানে বসে থাকা, ভিকটিম স্বাধীন বিশ্বাস (২৪) তাহার বাবাকে বাচানোর জন্য এগিয়ে আসলে আসামীগন ভিকটিমকে হত্যার উদ্দেশ্যে বাশের লাঠি দিয়ে মাথার বিভিন্ন অংশে আঘাত করে। উক্ত আঘাতে ভিকটিম গুরুতর জখম প্রাপ্ত হয়ে স্থানীয় লোক মারফত ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়। পরবর্তীতে ভিকটিম চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৫ এপ্রিল দিবাগত রাতে মৃত্যুবরণ করেন। এ বিষয়ে ভিকটিম এর পিতা বাদী হয়ে ১৫ এপ্রিল ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত নামা আরও ১০/১২ জনকে আসামি করে ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ঘটনার বিষয়ে র্যাব—৬, ঝিনাইদহ ক্যাম্পের একটি চৌকস আভিযানিক দল ছায়া তদন্ত শুরু করে এবং উক্ত হত্যা মামলার পলাতক আসামীদের গ্রেফতারের লক্ষ্যে র্যাবের গোয়েন্দা তৎপরতা অব্যাহত রাখে।