রূপসায় হত্যার উদ্দেশ্যে আ’লীগ কর্মীর উপর হামলা, ছুরিকাঘাত

0
85

নিজস্ব প্রতিবেদক:
খুলনার রূপসা উপজেলায় যুগীহাটি গ্রামের বাসিন্দা ও আওয়ামী লীগ কর্মী মো: মুস্তাকিম শেখকে হত্যার উদ্দেশ্যে সশস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে। হামলায় এলাকার চিহিৃত মাদক ব্যাবসায়ীসহ ১০জন অংশ নেয়। তখন মুস্তাকিমের হাতে ছুরিকাঘাত করা হলে সে দৌড়ে পালিয়ে প্রাণ বাঁচাতে সক্ষম হয়। এঘটনায় রূপসা থানায় মামলা (নং ১১) দাখিলের পর প্রধান অভিযুক্ত সাগরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
জানা গেছে, যুগীহাটির বাসিন্দা মোঃ জামাল শেখ ও জাহানারা বেগম দম্পতির সন্তান মোঃ মুস্তাকিম শেখ গত ২৩ জুলাই রাত ১০ টার সময় তার বন্ধু অসুস্থ সুমনকে দেখে ফেরার পথে ৪-৫ জন মিলে দা, গরু কাটা ছুরি, বন্ধুক নিয়ে তাকে ঘিরে ফেলে। পরবর্তীতে সে দৌড় দিলে ছুরি দিয়ে আঘাত করে।
মুস্তাকিম জানান, সেখান থেকে পালিয়ে চলে এসে আমি আইচগাতী ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী মোঃ মোস্তফা সরদার রাতুল ভাইকে ফোন করি এবং সে আমাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে। এরপর আমার বাসায় গিয়ে না পেয়ে আসামীগনরা না পেয়ে অতর্কিতভাবে হামলা চালায় আমার ঘর ও আমার বাবার ঘরেও ভাংচুর করে। সেখানে উপস্থিত বাড়ীর লোক ও আশপাশের লোকজন স্বাক্ষী হিসেবে ছিল।
এরপর আসামীগণ সেখান থেকে বের হয়ে আইচগাতী ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী মোঃ মোস্তফা সরদার রাতুল ভাইয়ের বাড়ীর সামনে অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে অবস্থান করে এবং আসামী অভি নামে লোহার গেট ধাক্কাধাক্কি করে বের হয়ে আসার জন্য ডাকে এবং বাকী অন্যান্য আসামীরা অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে এবং আওয়ামীলীগের নাম ব্যাঙ্গ করে ডাকাডাকী করে। স্বাক্ষীগণ আমার বাড়ীর লোক ও আসেপাশের লোকজন। আমাদের দুজনের প্রাননাশের হুমকী স্বরূপ হিসাবে দাড়িয়েছে। বাসায় থাকার মত পরিস্থিতি আর নেই।
এজাহারে অভিযুক্তরা হলেন, একই গ্রামের ইব্রাহীমের ছেলে সাগর ও সোলাইমান, আবু বকর এর ছেলে জিহাদ (লিষ্টেড মাদক ব্যবসায়ী ও মার্ডার কেসের আসামী চলমান), রাজ্জাক ওরফে জিদ্দার ছেলে মনিরুজ্জামান মনির (বিএনপি সমর্থক ও মাদক ব্যবসায়ীদের গডফাদার), থোকন মোড়লের ছেলে সোহান (ইয়াবা ব্যবসায়ী ও বিএনপির লোক), কবির শেখের ছেলে অভি, মাদক ব্যবসায়ী আল আমীন সহ আরও আনুমানিক ১০ জনেরও বেশি।
রূপসা থানার অফিসার ইনচার্জ সরদার মোশাররফ হোসেন জানান, উল্লেখিত ঘটনায় মামলা দাখিলের পর প্রধান অভিযুক্ত সাগরকে ২৪ জুলাই গ্রেফতার করা হয়। পরদিন ২৫ জুলাই আসামীকে আদালতে সোর্পদ করা হয়েছে। অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।