‘রাসায়নিক সার ব্যবহারে নষ্ট হচ্ছে জমির উর্বরতা ও খাদ্যের মান’

0
25

প্রতিনিধি, দাকোপ :
বৈশ্বিক উষ্ণায়ন ও জলবায়ু পরিবর্তনে যেসব ক্ষেত্র মন্দা যাচ্ছে এরমধ্যে অন্যতম কৃষিক্ষেত্র। বাড়তি ফসলের আশায় কৃষকেরা মাত্রাতিরিক্ত রাসায়নিক সার ও কীটনাশক প্রয়োগ করে খাদ্যের গুণগতমান নষ্টের পাশাপাশি মাটির উর্বরতা শক্তিও নষ্ট করছে। আবার অন্যদিকে কীটনাশকের যথেচ্ছ ব্যবহার বাড়িয়ে তুলছে স্বাস্থ্য ঝুঁকি। এই অবস্থা থেকে উত্তোরণের জন্য জৈব কৃষি ও জনসচেতনতার বিকল্প নেই। বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) অনুষ্ঠিত ইকো মেলায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

খুলনার দাকোপ উপজেলার লাউডোব ইউনিয়নের লাউডোব বাজার সার্বজনীন দূর্গা মন্দির প্রাঙ্গণে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা বিএএসডি’র আয়োজন করে। এই ইকো মেলার শ্লোগান ছিল ‘বাস্তুতন্ত্রের পূনরুদ্ধারে জৈব কৃষি, জৈব বাঁচাই-জৈবে বাঁচি’। মেলায় জৈব কৃষির নানা পদ্ধতি ও জৈব সবজি ২৪টি স্টল নিয়ে স্বনির্ভর দলের সদস্যবৃন্দ ও বিএএসডি’র ৪টি নেটওয়ার্কের সদস্যরা অংশ নেন। কারিতাস লুক্সেমবার্গের আর্থিক সহায়তায় ক্লাইমেট চেঞ্জ রেজিলিয়েন্স অ্যাণ্ড ফুড সিকিউরিটি (সিসিআরএফএস) প্রকল্পের অংশ হিসেবে সমগ্র কার্যক্রমটি বাস্তবায়িত হয়।
মেলা উপলক্ষে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন বিএএসডি’র সিসিআরএফএস প্রকল্পের সমন্বয়কারী উজ্জ্বল মার্কুস কস্তা। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুনসুর আলী খান। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা প্রজিত রায়, উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা সুরাইয়া সিদ্দিকা, ইউপি চেয়ারম্যান সুদেব কুমার রায়, বিনয় কৃষ্ণ রায়, দাকোপ রিপোর্টার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আজিজুর রহমান, প্রধান শিক্ষক অমিয় কুমার মণ্ডল ও সিসিআরএফএস প্রকল্প ব্যবস্থাপক পরিতোষ কুমার মৃধা প্রমুখ। সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বুড়িরডাবুর মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুকল্যাণ রায়।