রাজনীতিতে তারা এখন তারকা দম্পতি!

0
402

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনাটাইমস:

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের নব-নির্বাচিত মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক দম্পতি ফুরফুরে মেজাজে রয়েছেন । রাজনীতিতে রীতিমতো তারা এখন তারকা দম্পতি! ১৫ মে দ্বিতীয় দফায় মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন তালুকদার আব্দুল খালেক। এরপর পরই তার স্ত্রী হাবিবুন্নাহার বেগম বাগেরহাট-৩ আসন থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দ্বিতীয়বার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। নগরীর মুন্সিপাড়া কয়লা ঘাটে নিজ বাসায় পর পর দু-দু’টি আনন্দ সংবাদে এই দম্পতি এখন দারুণ আনন্দঘন পরিবেশে সময় কাটাচ্ছেন। গত ত্রিশ বছর ধরে এই দম্পতি এই বাসাতেই বসবাস করছেন। দলের শত শত নেতা-কর্মী শুভাকাঙ্ক্ষীরা ফুলের শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন তাদের।

তবে এমন পরিবেশ আর আনন্দময় মুহূর্ত এর আগেও এই দম্পতির জীবনে এসেছে। তালুকদার আব্দুল খালেক এর আগে যখন খুলনার মেয়র ছিলেন সেবারও তিনি তার এমপি পদ ছেড়ে দিলে তার স্ত্রী ঐ আসনেই এমপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। একই আসনেই আগে এমপি ছিলেন তালুকদার খালেক। কেসিসিতে মেয়র হিসেবে আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনা তাকে ডেকে নিয়ে মনোনয়ন দিলে রামপাল-মংলা নিয়ে গঠিত বাগেরহাট-৩ আসন শূন্য হয়।

শেখ হাসিনার সম্মতি নিয়ে এক সময়ের যশোর বোর্ডে মেধা তালিকায় উত্তীর্ণ মেধাবী ছাত্রী হাবিবুন্নাহার মনোনয়নপত্র কেনেন। সেখানে আরও চারজন মনোনয়নপত্র কিনেছিলেন। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ দিনে নিজ দল থেকে বা অন্য দল থেকে মনোনয়ন জমা না দেয়ায় হাবিবুন্নাহারের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দ্বিতীয়বারের মতো এমপি নির্বাচিত হওয়ার পথ সুগম হয়ে যায়।

ফোনে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে হাবিবুন্নাহার বেগম প্রথমেই কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন দলের সভাপতি শেখ হাসিনাকে। তিনি নিজ নির্বাচনী এলাকার জনগণের দোয়া চেয়ে জানান, দল ও নেত্রী যে দায়িত্ব দিয়েছেন, তা যেন ভালোভাবে পালন করতে পারি। স্বামী খুলনা সিটির নির্বাচিত মেয়র, নিজে এমপি এমন প্রশ্নের জবাবে হাবিবুন্নাহার বেগম জানান, সব কিছুর মালিক আল্লাহ।

জানা গেছে, নিঃসন্তান এই দম্পতির কাছে বরাবরই রাজনীতিই মুখ্য। ছাত্র রাজনীতি থেকে বিদায় নিয়ে তালুকদার আব্দুল খালেক স্বাধীনতার পরে বিয়ে করেন হাবিবুন্নাহারকে। খুব সাধারণ জীবনযাপনে অভ্যস্ত এই দম্পতি।

ছাত্রলীগের রাজনীতি ছাড়ার পর তালুকদার খালেক খুলনা মহানগরীর ২২নং ওয়ার্ডে কমিশনারের পাশাপাশি মহানগর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি হয়েছেন, রামপাল-মংলা আসনে কয়েকবার এমপি, ৯৬ সালে আওয়ামীলীগ সরকার গঠন করলে ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ও পরবর্তীতে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।

অন্যদিকে স্ত্রী হাবিবুন্নাহার এবার নিয়ে দ্বিতীয় দফায় এমপি হলেন। স্ত্রী হাবিবুন্নাহার সব সময়েই স্বামী খালেকের পাশে বন্ধুর মত সময় দিয়েছেন, স্বামী খালেকও স্ত্রী হাবিবুন্নাহারকে পরম মমতায় নিজের ও রাজনৈতিক জীবনে ধরে রেখেছেন, একে অপরকে সহযোগিতা করে এসেছেন।

দলের নেতা-কর্মীদের কাছে এই দম্পতিও বেশ জনপ্রিয়। বাংলাদেশের রাজনীতিতে একাধিক দম্পতি সক্রিয় থাকলেও স্বামী মেয়র, স্ত্রী এমপি দেশের রাজনীতিতে এমন ঘটনা নজিরবিহীন।

তথ্যসূত্র: কেসিসি’র ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আমিনুল ইসলাম মুন্নার ফেসবুক হতে সংগৃহিত।