যে ৬ গাছ ঘরের বাতাস বিশুদ্ধ করে

0
994

লাইফস্টাইল ডেস্কঃ
আপনি কি জানেন শুধু ঘরের ভেতরে থেকেও আপনি অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন? শুধু মাত্র বিষাক্ত বাতাসের কারণে! বাতাস বিশুদ্ধ করার জন্য আপনি করে থাকেন? বাজার থেকে কেনা এয়ার ফ্রেশনার ব্যবহার করেন, তাই তো? এই এয়ার ফ্রেশনারগুলো আপনার বাতাস পরিষ্কার করতে পারে না।

বরং এয়ার ফ্রেশনারের রাসায়নিক পদার্থ আপনার ঘরের বাতাসকে আরও দূষিত করে তোলে। কিছু গাছ আছে যা ঘরে বাতাসকে বিশুদ্ধ করে দূষণমুক্ত করে তোলে। মজার বিষয় হল এই গাছগুলো আপনি ঘরের ভেতরেই লাগাতে পারেন। আজকালকার দূষণভরা জীবনে নিজের ঘরকেই করে তুলুন সবচেয়ে বেশি স্বাস্থ্যকর।

পিস লিলি: পিস লিলি এই গাছটি ঘরের বাতাসকে ফিলটার করে বিশুদ্ধ করে তোলে। বেনজিন, ফর্মালডিহাইড, জাইলিন, অ্যামোনিয়া, টলিউইন এবং ট্রাইক্লোরোইথিলিন মত পদার্থ এই গাছটি দূর করে।

স্নেক প্ল্যান্ট: স্নেক প্ল্যান্ট এই গাছটি আমাদের কাছে পাতা বাহার নামে পরিচিত। বেনজিন, ফর্মালডিহাইড, ট্রাইক্লোরোইথিলিন, জাইলিন, এবং টলিউইন এর মত পদার্থ এরা দূর করে।

চন্দ্রমল্লিকা: খুব পরিচিত এই ফুলটিকে পট মমও বলা হয়ে থাকে। এই গাছটি বেনজিন, ফর্মালডিহাইড, ট্রাইক্লোরোইথিলিন, জাইলিন, টলিউইন অ্যামোনিয়ার মত পদার্থ বাতাস থেকে দূর করে।

অ্যালোভেরা প্ল্যান্ট: ঘন, রসালো এবং খুব সহজে বেড়ে উঠা একটি গাছ হল অ্যালোভেরা প্ল্যান্ট। এই গাছটি খুব সহজে ঘরে ভিতরে যেমন বেড়ে উঠতে পারে তেমনি এটি ঘরের রাসায়নিক পদার্থ সব শুষে নেয়।

জারবেরা ডেইজি: সুন্দর এই গাছটি আপনার ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করার সাথে সাথে বেনজিন, ফর্মালডিহাইড, এবং ট্রাইক্লোরোইথিলিন মত পদার্থ দূর করে বাতাসকে বিশুদ্ধ করে দেয়।

উইপিং ফিগ: দক্ষিণ এশিয়া এই গাছটি বেশ জনপ্রিয়। এর উচ্চতা ২ থেকে ১০ ফুটের মধ্যে হয়। অল্প আলো, স্বল্প জায়গার মধ্যে এই গাছটি বেড়ে উঠতে পারে। এর জন্য খুব বেশি ঝামেলার প্রয়োজন পড়ে না।

আরও কিছু পরিচিত গাছ যা ঘরের বাতাস দূষণমুক্ত করে বায়ু বিশুদ্ধ করে দিয়ে থাকে। যেমন স্পাইডার প্ল্যান্ট, মানি প্ল্যান্ট ইত্যাদি।