মিথ্যা তথ্য দিয়ে বরাদ্ধ চাওয়ায় মোংলা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে মন্ত্রনালয়ের নোটিশ

0
532

বাগেরহাট প্রতিনিধি:
ঘূর্ণিঝড় ফণী’র ক্ষয় ক্ষতির ভূল তথ্য দিয়ে বরাদ্ধ চাওয়ায় মোংলা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নাহিদুজ্জামান কে কারন দর্শনোর নোটিশ দিয়েছে দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর। অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবু সৈয়দ মোহাম্মদ হাশিম সাক্ষরিত নোটিশটি প্রাপ্তির সাত কার্য দিবসের মধ্যে কারন দর্শাতে বলা হয়েছে এ কর্মকর্তাকে। জানাযায়,৩ মে ঘূর্ণি ঝড় ফণী মোংলা বন্দর অতিক্রম করে। ৪ মে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোংলা উপজেলায় ৯৫৬টি বাড়ী, কানাইনগর এবং কাইনমারী এলাকার ১০টি গ্রাম প্লাবিত হয়ে ৩০ হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এমন তথ্য দিয়ে জরুরী ওষদ,নগদ টাকা,চাল বরাদ্ধ চান। মিথ্যা তথ্য দিয়ে বরাদ্ধ চাওয়া হয়েছে এমন অভিযোগ এনে সংবাদ প্রচার হয় বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে। কারন দর্শনোর নোটিশে প্রকল্প কর্মকর্তাকে সরকারী কর্মচারী বিধিমালা ২০১৮ এর বিধান মোতাবেক কর্তব্য অবহেলা ও অসদাচরন করার দায়ে অভিযুক্ত করা হয়।
২০১১ সাল থেকে মোংলা উপজেলায় প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত আছেন নাহিদুজ্জামান। রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে ইচ্ছা মতো কর্মকান্ড পরিচালনা করার কারনে ২০১৫ সালে চুয়াডাঙ্গায় বদলির আদেশ হয় নাহিদুজ্জামানের। কিন্তু অদৃশ্য কারনে সে আদেশ স্থগীত হয়। সদ্য বিদায়ী মোংলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম নাহিদুজ্জামানের নানা বিতর্কিত কর্মকার্ন্ডের কারনে তাকে বদলির জন্য লিখিত আবেদন করেছেন মন্ত্রনালয়ে। এবিষয়ে মোংলা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নাহিদুজ্জামান মুঠোফোনে এই প্রতিবেদকে বলেন ,কোন ধরনের প্রাকৃতিক দূর্যোগ হওে ১ঘন্টার মধ্যে জেলাকে প্রাথমিক ক্ষয়ক্ষতির পরিমান জানাতে হয় । আমি ঘূর্ণীঝড় ফণী আঘাত হানার পর সব ইউপি চেয়ারম্যান,পৌরমেয়রসহ বিভিন্ন শ্রেনীর পেশার মানুষকে নিয়ে তাৎক্ষনিক তাদেরকাজ থেকে প্রাথমিক তথ্যনিয়ে জেলাকে জানাই এ বিষয়ে আমাকে পত্র দেয়া হয়েছে লোক মুখে শুনেছি । অফিসিয়াল কোন পত্র আমি পাইনি ।