মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের নিন্দা : তালুকদার খালেকের পক্ষে ঐক্যবদ্ধ ১৪ দল

0
372

বিজ্ঞপ্তি: ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ বলেছেন, খুলনার মানুষ গত পাঁচ বছরে উন্নয়ন থেকে বঞ্ছিত হয়েছে। নগরবাসির স্বার্থে আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আগামী নির্বাচনে তালুকদার আব্দুল খালেককে বিজয়ী করতে হবে। নেতৃবৃন্দ বলেন, মিথ্যাচার দিয়ে সরকার সহ ১৪ দলের বিরুদ্ধে বিএনপি-জামায়াত নানা ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। ওই সকল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ ভাবে প্রতিহত করতে হবে। নেতৃবৃন্দ ১৪দলের সমন্বয়ক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান এমপি’র বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয় ॥ নেতৃবৃন্দ বলেন, কালের কন্ঠ পত্রিকার সংবাদ দেখে মনে হয় যে, একজন সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে অত্যন্ত সুপরিকল্পিত ও উদ্দেশ্যমূলক ভাবে এ সংবাদ করা হয়েছে। নেতৃবৃন্দ এই মিথ্যা, ভিত্তিহীন ও বানোয়াট সংবাদের তীব্র নিন্দা জানান।
বুধবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ১৪দল সভায় নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন। খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও ১৪ দলের সমন্বয়ক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান এমপি’র সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ হারুনুর রশিদ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা এস এম কামাল হোসেন, মহানগর জাসদ সভাপতি রফিকুর হক খোকন, জেপি’র কেন্দ্রিয় নেতা শরীফ শফিকুল হামিদ চন্দন, জাসদ কেন্দ্রিয় নেতা খালিদ হোসেন, কেন্দ্রীয় সাম্যবাদি নেতা এফ এম ইকবাল হোসেন, জেলা ন্যাপের সভাপতি এ্যাড ফজলুর রহমান, জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মিনা মিজানুর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালাম আজাদ কামাল, মোঃ মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, অসিত বরন বিশ্বাস, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এইচ এম বদিউজ্জামান সোহাগ, জেলা জাসদ সভাপতি শেখ গোলাম মোর্ত্তুজা, জাকের পার্টির সভাপতি মোঃ সাদেক আলী, জাকের পার্টির গোলাম নবী মাসুম, ওর্য়াকার্স পার্টির নেতা দেলোয়ার হোসেন দিলু, মনির আহমেদ, ফারুখ উল ইসলাম, শেখ মফিদুল ইসলাম, যুব মৈত্রী এ্যাড কামরুল হোসেন জোয়াদ্দার, গণতন্ত্রী পার্টির সোলেমান হাওলাদার, ম্যাপ নেতা মিলন মোহন মন্ডল, সাম্যবাদি দলের নেতা এ্যাড মোস্তফা বিলাল, গনতান্ত্রিক পার্টির নেতা মোঃ আতিয়ার রহমান, মোঃ আহসাবুর রহমান বুলু প্রমুখ।
সভায় প্রত্যেক ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী কমিটির সাথে ১৪ দলের নেতা কর্মীদেও সম্পৃক্ত করার সিদ্ধান্ত হয়।