মার্কিন সরকারের কার্যক্রম বন্ধ

0
309

অনলাইন ডেস্ক :
সরকারের বাজেট বাড়ানো নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটে মতবিরোধের কারণে উত্থাপিত একটি বিল পাস না হওয়ায় দেশটির সরকারি কার্যক্রমে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সরকারের বাজেট বাড়ানো নিয়ে প্রস্তাবিত বিল সিনেটে অনুমোদনের শেষ সময় ছিল শুক্রবার মধ্যরাত পর্যন্ত। কিন্তু শেষ মুহূর্তেও একমত হতে পারেননি সিনেটররা।

বিবিসি জানায়, আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সরকারের বাজেট বাড়ানো নিয়ে প্রস্তাবিত ওই বিল সিনেটে প্রয়োজনীয় ৬০ ভোট পায়নি। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এই প্রথম হোয়াইট হাউজ ও কংগ্রেস একই দলে নিয়ন্ত্রণে থাকার পরও সরকারের বাজেট বাড়ানোর বিল অনুমোদন পেতে ব্যর্থ হলো।

এজন্য ডেমক্রেটদের দায়ী করে হোয়াইট হাউজের পক্ষ থেকে বলা হয়, তারা তাদের বেপরোয়া দাবির নিচে বৈধ নাগরিকদের জিম্মি করে রেখেছে।

রিপাবলিকান ও ডেমক্রেট সিনেটরদের মধ্যে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে তীব্র মতবিরোধ থাকায় ভোটের সিদ্ধান্ত নেন সংখ্যাগরিষ্ঠ সিনেটরদের নেতা মিচ ম্যাককনেল। তবে এই ভোটগ্রহণ কীভাবে চলছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। যদিও পরিস্থিতি বলছে, বিলটি নিয়ে পরবর্তী আলোচনার পথ খোলা রাখতে প্রয়োজনীয় ৬০ ভোটই পাওয়া যাবে না।

এ বিষয়ে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক টুইটবার্তায় নিজের হতাশা প্রকাশ করেন।

আগামী মাস পর্যন্ত সরকারের বাজেট বাড়ানোর বিলটি বৃহস্পতিবার রাতে হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভে ২৩০-১৯৭ ভোট পাস হয়।

দ্রুত এই সমস্যারসমাধানে পৌঁছাতে না পারলে দেশটির অনেক সরকারি দফতর বন্ধ হয়ে যাবে। তবে জরুরি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর কাজ চলবে। বন্ধ হয়ে যাবে জাতীয় উদ্যান ও স্মৃতিস্তম্ভগুলোর রক্ষণাবেক্ষণ কাজ।

এর আগে ২০১৩ সালে সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সময় সিনেটরদের মতবিরোধে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের তহবিল বন্ধ হয়ে গিয়েছিল এবং ১৬ দিন পর্যন্ত ওই অচলাবস্থা ছিল।