মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের পৃথক অভিযানে আটক ২, দন্ড

0
254

নিজস্ব প্রতিবেদক
খুলনা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পৃথক অভিযান চালিয়ে ইয়াবাসহ দুই জনকে আটক করেছেন। আটককৃতরা হচ্ছে এস এম শাহজাহান (৪০) এবং মোঃ আবুল কালাম (২৫)। এদের মধ্যে শাহাজাহানকে ৩ মাস ও কালামকে ২০ দিনের বিনাশ্রম কারাদ- প্রদান করেন। রোববার দিনব্যাপী রূপসা উপজেলা ও নগরীর চানমারি এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করেন। রূপসা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাসরিন আক্তার এবং জেলা প্রশাসকের নিবার্হীম ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ ইমরান খান পৃথক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। এদিকে কালীপুজা উপলক্ষে মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের উদ্যোগে মাদক বিরোধী অভিযানে বিশেষ দুটি টিম গঠন করা হয়েছে।
খুলনা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সূত্র মতে, সংস্থার উপ-পরিচালক মোঃ রাশেদুজ্জামানের তত্ত্বাবধানে ‘ক’ সার্কেলের পরিদর্শক হাওলাদার মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি টিম পৃথক অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানটি রূপসা উপজেলা যুগিহাটি গ্রামের বাসিন্দা নুরুল হকের পুত্র এস এম শাহাজাহানকে ১৫ পিস ইয়াবাসহ আটক করেন। অপরদিকে চানমারী এলাকায় মতিয়াখালী ৫ম গলিতে অভিযান চালিয়ে মৃত ইলাই বখস গাজীর পুত্র মোঃ আবুল কালামকে ইয়াবাসহ আটক করেন। পরবর্তীতে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে দুই জন উল্লিখিত পৃথক সাজা প্রদান করেন। এর আগে ‘ক’ সার্কেলের পরিদর্শক হাওলাদার মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি টিম গত ২৪ অক্টোবর নগরীর মিয়া পাড়া এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় ওই এলাকার বাসিন্দা মোঃ ওয়াজি উল হকের পুত্র মোঃ মেজবাহ উল হক (৩৪)কে ৩০ গ্রাম হিরোইন সহ আটক করেন। এ ব্যাপারে তার বিরুদ্ধে খুলনায় থানায় পরিদর্শক হাওলাদার মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। গত ২০ অক্টোবর নগরীর মিয়া পাড়া ২য় গলিতে এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় ওই এলাকার বাসিন্দা মৃত হাসমত আলীর পুত্র সৈয়দ রহমত আলী (৪০) কে গাজাসহ আটক করেন। পরবর্তীতে ভ্রাম্যূমান আদালতে মাধ্যমে তাকে ১৫ দিনের সাজা প্রদান করা হয়। জলা প্রশাসকের নিবার্হীম ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ ইমরান খান ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। এদিকে কালীপুজার উপলক্ষে মাদক বিরোধী অভিযানে বিশেষ দুটি টিম গঠন করা হয়েছে।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ রাশেদুজ্জামান বলেন, ২৭ অক্টোবর কালীপূজা উপলক্ষে তিন দিনব্যাপী মাদক বিরোধী বিশেষ অভিযানের দুটি টিম গঠন করা হয়েছে। এই টিম আগামী ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত নগরীর বিভিন্ন এলাকায় ও উপজেলাগুলোতে অভিযান পরিচালনা করবেন। পাশাপাশী তাদের নিয়মিত অভিযানও অব্যাহত থাকবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।