মধুপুরের রাবার বাগানের শ্রমিকরা এক সপ্তাহ স্থগিতের পর ফের র‌্যালী ধর্মঘট

0
1186

টাঙ্গাইলের মধুপুর রাবার জোনের ৫ রাবার বাগানের দেড় সহ¯্রাধিক নারী-পুরুষ শ্রমিক এক সপ্তাহ ধর্মঘট স্থগিত রেখে ফের ৪ দফা দাবীতে মঙ্গলবার (২৩ অক্টোবর) থেকে ধর্মঘট শুরু করেছেন। স্থানীয় প্রশাসনের মধ্যস্থতায় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক এমপির সুপারিশে কর্তৃপক্ষের আশ্বাস পেয়ে তারা এক সপ্তাহ ধর্মঘট স্থগিত রেখেছিলেন।
গত ১৩ অক্টোবর থেকে ধর্মঘট শুরু করলে ১৬ অক্টোবর বিকেলে কর্তৃপক্ষ ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দকে নিয়ে স্থানীয় প্রশাসন উপজেলা নির্বাহী অফিসার রমেন্দ্র নাথ বিশ্বাসের মাধ্যমে এক সমঝোতা বৈঠক হয়।
বৈঠকে মধুপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ছরোয়ার আলম খান আবু, বাংলাদেশ বন শিল্প উন্নয়ন কর্পোরেশন (বশিউক) এর সদর দপ্তরের পরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) সৈয়দ লোকমান আহমেদ মধুপুর রাবার জোনের জেনারেল ম্যানেজার (চলতি দায়িত্ব) ওলিউর রহমান, মধুপুর থানার ওসি সফিকুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ নেতা ইয়াকুব আলী ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ, বাগান প্রধানসহ শ্রমিক নেতৃবৃন্দকে উপস্থিত ছিলেন। মোবাইল ফোনে ড. মো. আবদুর রাজ্জাক এমপি ওই বৈঠকের সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলেন। কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে শ্রমিকরা ধর্মঘট এক সপ্তাহ স্থগিত করেন।
শ্রমিক নেতৃবৃদের দাবি কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে কোন উদ্যোগ না নেয়ায় তারা আবারও মঙ্গলবার থেকে আন্দোলনে ফিরে গেছেন। তাদের ঘোষণা দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।
তারই ধারাবাহিকতায় বুধবার শ্রমিকরা মধুপুর পীরগাছা রাবার বাগানে কর্মরত পিছমিল শ্রমিক ইউনিয়নের শ্রমিকরা গতকাল বুধবার পিছমিল পদ্ধতি বাতিল ও মাষ্টার রোলে মাসিক বেতনের দাবীতে রাবার বাগানের ভিতরে বিক্ষোভ র‌্যালী ও মানববন্ধন কর্ম বিরতি পালন করেছে।
পীরগাছা রাবার বাগানের অফিসের সামনে দিয়ে কারখানার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শ্রমিক ইউনিয়ন অফিসের সামনে ১ ঘন্টা ব্যাপী অলোচনা সভা করেন।
এসময় বক্তব্য রাখেন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সাইফুল ইসলাম শানু,সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান,নারী শ্রমিক কোহিনুর,দিলরুবা,হাসনা সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
শ্রমিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি মোখলেছুর রহমান,সহ-সাধারণ সম্পাদক বিল্লাল হোসেন,সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজুর রহমান সহ বাগানের সকল শ্রমিকরা উপস্থিত ছিলেন ।
উল্লেখ্য, মধুপুরের পীরগাছা, চাঁদপুর, কমলাপুর, সন্তোষপুর ও শেরপুরের কর্নজোড়া এ ৫ রাবার বাগানের পিসমিল টেপিং শ্রমিকদের ৪ দফা দাবী তুলে আন্দোলনে যান। বাংলাদেশ বন শিল্প উন্নয়ন কর্পোরেশন (বশিউক) এর কাছে প্রতিষ্ঠানটির আওতাধীন ওই ৫ রাবার বাগানের শ্রমিকরা বহুদিন ধরে এ ৪ দফা দাবী করে আসছেন।
শ্রমিক নেতৃবৃন্দের ভাষ্যমতে, ২০০০ সাল থেকে পিসমিল শ্রমিক হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত শ্রমিকরা বর্তমানে টেপিং কাজে সংযুক্ত ও কষ প্রক্রিয়াজাতকরণ কারখানায় কর্মরত। শ্রমিকদের স্থায়ী শ্রমিক হিসেবে নিয়োগ, অস্থায়ী পিসমিল নিয়ম বাতিল করে মাসিক মাস্টার রোল ভিত্তিক নিয়মিত শ্রমিকদের সমপরিমাণ মজুরী প্রদান, কারখানায় শ্রমিকদের মাস্টার রোলে মাসিক ১৫ হাজার টাকা মজুরী প্রদান ও বাগানে যাতায়াত ব্যবস্থার উন্নতকরণ এই ৪ দফা দাবীতে তাদের এ আন্দোলন।
গত এক সপ্তাহে কর্তৃপক্ষ তাদের দাবী পূরণে উদ্যোগ না নেয়ায় তারা আবারও ধর্মঘটে ফিরে গেছেন। গতকাল মঙ্গলবার থেকে তারা বাগানে কাজ না করে মিছিল সভা-সমাবেশ অব্যাহত রেখেছেন। দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত তাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন।
শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বলেন, আমরা ১৮-১৯ বছর যাবত টেপিং প্রশিক্ষণার্থী নিয়োগের মাধ্যমে টেপিং প্রশিক্ষণ নিয়ে রাবার বাগানে উৎপাদনের স্বার্থে জীবন-যৌবনের মূল্যবান সময় কাটিয়ে দিয়েছি। বিনিময়ে আমাদের ন্যায্য অধিকার না দিয়ে পিসমিল নিয়মের দোহাই দিয়ে নামমাত্র মজুরী দেয়া হয়। এতে আমাদের জীবনে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে। শ্রমিক হিসেবে নূন্যতম নিশ্চয়তার জন্য আমাদের এ ৪ দফা দাবী কর্তৃপক্ষের মেনে নিতে হবে।
শ্রমিক নেতারা তাদের পিছমিল পদ্ধতি বাতিল করে সরকার ঘোষিত নূন্যতম মাসিক মুজরী করার দাবী জানান। এ দাবী মেনে না নিলে মধুপুর রাবার বাগান শ্রমিকরা তাদের এই কর্মবিরতি অব্যহত রাতন বলেও হুশিয়ারী দেন। প্রতিনিধি