মতবিনিময় সভায় মেয়র প্রার্থী খালেক ইজিবাইক বা ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা বন্ধ করা হবে না

0
829

নিজস্ব প্রতিবেদক : আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক বলেন, “ইজিবাইক বা ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা বন্ধ করা হবে না। বরং আমি নির্বাচিত হলে সবাইকে লাইসেন্স প্রদান করে মহানগরীর সড়কপথে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনব। ইজিবাইক স্বল্প আয়ের মানুষের প্রধান বাহন ও পরিবেশবান্ধব । আমি মেয়র থাকাকালে ১৮ শ’ ইজিবাইকের লাইসেন্স দিয়েছিলাম। গত ৫ বছরে একটি ইজিবাইকেরও লাইসেন্স দেওয়া হয়নি। অথচ বিগত নির্বাচনের আগে বিএনপি প্রার্থী নগরবাসীকে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি ও আমার প্রতি অপপ্রচার চালিয়েছিল। আসন্ন নির্বাচনে আমি নির্বাচিত হলে নগরীর কোন শ্রমজীবি মানুষের রুটি-রুজির উপরে আঘাত হানা হবে না। বরং নগরীর ফুটপাতের হকারদেরও পরিকল্পিত ভাবে স্থায়ী পুনর্বাসন করা হবে। তিনি আরো বলেন ইজি বাইক, রিকসা চালক ও হকাররা যারা শ্রমদিয়ে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে অর্থ উপার্যন করে, তাদের কাছ থেকে কেউ যাতে চাদাবাজি করতে না পারে, সে যেই হোক তাদের কঠোর হাতে দমন করা হবে। আ’লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী বলেন, আমি নির্বাচিত হলে মহানগরীর সড়কপথ প্রশস্তকরণ ও ইজিবাইক চালকদের প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করা হবে। যাতে ইজিবাইক চালকদের সাথে নগরবাসীও স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন। তিনি কোন ধরনের প্রলোভন বা মিথ্যাচারে কান না দিয়ে উন্নয়নের স্বার্থে নৌকা প্রতীকে ভোট দেয়ার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান।”
গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় মহানগরী ইজিবাইক, ব্যাটারী চালিত ও ম্যানুয়াল রিক্্রা-ভ্যান বি-২০০২ মালিক ও চালক সমিতির সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। খুলনা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে সংগঠনের উপদেষ্টা হাসনাত রিজভী মার্শালের সভাপতিত্বে এবং আঞ্চলিক সমিতির সভাপতি মশিউর রহমানে মিলনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ কামাল, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক এ্যাড. ফরিদ আহমেদ, মহানগর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মোঃ মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যা. মিজানুর রহমান, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের উপ প্রচার সম্পাদক মোঃ মফিদুল ইসলাম টুটুল। অন্যানের মধ্য বক্তৃতা করেন, কাউন্সিলর প্রার্থী যথাক্রমে আবুল কালাম আজাদ বিকু কাজী, কনিকা সাহা, ফায়েজুল ইসলাম টিটো, মহানগর শ্রমিক লীগের সভাপতি আবুল কাশেম মোল্লা, সাধারন সম্পাদক রনজিত কুমার ঘোষ, মোতালেব মিয়া, মল্লিক নওসের আলী, কাজী আব্দুল ওহাব, আব্দুর রহিম খান, আব্দুর রশিদ শিকদার আজাদ, তারিকুল ইসলাম, মোঃ আক্তার হোসেন, শ্রমিক নেতা আবুল হোসেন আবু, মোঃ বাবুল হোসেন, মোঃ আসলাম, মোঃ হানিফ সরদার, মোঃ শের আলী, তৈয়ব আলী হালদার, জহিরুল ইসলাম রানা, মোঃ শাহীন শরিফ বাবু, মোঃ মিরাজুল ইসলাম রাজু, আব্দুল জলিল, লোকমান, আসানুর জামান খোকন, নূও ইসলাম সরদার, মোঃ আনিসুর রহমান, মোঃ রুবেল, হারুন রশিদ, রকিবুল কামাল, মাসুদ পারভেজ, মোঃ ফারুখ, জাহাঙ্গীর তালুকদার, বাবুল শেখ ইসমাইল, মোঃ মফিজুল ইসলাম রুবেল, মোঃ শফিকুল ইসলাম প্রমুখ।