মংলায় জমি নিয়ে বিরোধ জের ধরে দুই গ্রপের সংঘর্সে আহত-৭

0
368

মংলা প্রতিনিধি:
মংলায় জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে দোকান ভাংচুর ও দুই গ্রæপের সংঘর্সের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার সন্ধ্যার পর উপজেলার চিলা ইউনিয়নের বালুরমোড় এলাকায় এঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ ব্যাপারে উভয়য়ের কমবোশী ৭জন আহত হয়েছে। থানায় পৃথক দুইটি অভিযোগ দাখিল হয়েছে। এব্যাপারে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
থানার অভিযোগ সুত্রে ও প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানায়, বুধবার সন্ধ্যার পর প্রতিদিনের ন্যায় দোকান মালিক উত্তম মন্ডল তার দোকানে বেচা-কেনা করছিল। হঠাৎ নিলিপ বাড়ই ও তার স্ত্রী দিপালী বাড়ইসহ কয়েকজন লোক দোকানে ডুকে উত্তমকে মারধর করে ও দোকোনের মালামাল ভাংচুর শুরু করে। এতে উত্তমের ভাই রাজ কুমার মন্ডল বাধা দিলে তাকেও এলোপাতারী মারতে থাকে বলে অভিযোগে উল্লেখ্য করে। এ সংঘর্সে উভয় গ্রæপের প্রায় ৭জন আহত হয়েছে। আহতরা হচ্ছে-উত্তম মন্ডল (৩২), রাজকুমার মন্ডল (৪০), গবিন্দ বাড়ই (২৫) মানিক (৩৪) আকাশ বাড়ই (১৫),নিলিপ বাড়ই (৪০) ও দিপালী বাড়ই (৩০)। আহতদের মংলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্ের ভর্তি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে দিপালী বাড়ই বাদি হয়ে উত্তম মন্ডল,রাজকুমার মন্ডল,গোবিন্দ বাড়ই,আকাশ বাড়ই ও দিলিপ মন্ডলকে অভিযুক্ত করে থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করে। অপরদিকে এ ঘটনার পর পরই উত্তম মন্ডল বাদি হয়ে নিলিপ বাড়ই ও দিপালী বাড়ইসহ ৪/৫ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় অভিযোগ দাখিল করেছে।
এব্যাপারে জমির মালিক দাবিদার নিলিপ বাড়ই জানায়,২০০৮ সালে ১৫ জানুয়ারী তার এক খন্ড জমি উত্তম মন্ডলকে বছরে ১৮শ টাকা হারে ১০ বছরের চুক্তিপত্রে ভাড়া দেয়া হয়। উত্তম মন্ডল ওই জমিতে ঘর তৈরী করে ব্যাবসা পরিচালনা করবে বলে তাতে উল্লেখ করে। জমিটুকু ২০১৮ সালের ১ ফেব্রয়ারী ছেড়ে দেয়ার কথা থাকলেও উত্তম মন্ডল এখনও জমি ছেড়ে দেয়নী। এ বিষয় চিলা ইউনিয়ন পরিষদে গ্রাম্য আদালতে মামলা করা হয়েছে। কিন্ত বুধবার সন্ধ্যার পর তার স্ত্রী দিপালী বাড়ই ওই দোকানের সামনে গেলে তাকে উদ্যেশে করে গালা-গালী করতে থাকে উত্তম। এতে প্রতিবাদ করলে তাদের স্বামী-স্ত্রীকে মারধর করে উত্তম,রাজকুমার ও তাদের লোকজন। তারা দুজনই হাসপাতালে চিকিৎসাধিন আছে।
দোকান মালিক উত্তম মন্ডল জানায়, ২০০৮ সালে নিলিপ বাড়ইর কাছ থেকে জমি ভাড়া নেয়া হয়েছে কিন্ত ওই জমিতে মাটি ভরাট করে দোকান তৈরী করেছি। তার চুক্তি অনুযায়ী ভাড়াও পরিশোধ করা হয়েছে। কিন্ত একটি চলতি দোকান ও ঘর সরিয়ে নিতে একটু সময় লাগে। কিন্ত তারা সময় না দিয়ে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহলের ইন্দোনে ১৩ ফেব্রয়ারী চিলা ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম্য আদালতে একটি মামলা করে নিলিপ বাড়ই। এ মামলার বিরুদ্ধে আমরা মহামান্য হাইকোটে একটি রিট আবেদন নং-৫১৫৫/২০১৮ করা হলে গত ১১ এপ্রিল মহামান্য হাইকোর্ট বেঞ্চ গ্রাম্য আদালতের উক্ত আদেশ রুলসহ স্থাগিতাদেশ জারী করেন। কিন্ত বুধবার সন্ধ্যায় নিলিপ ও তার স্ত্রী দিপালীসহ একদল সন্ত্রাসীরা হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করে আমার দোকেনর মধ্যে ডুকে মারধর,ভাংচুর করে দোকানের টাকা ও মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। পুলিশ খবর পেয়ে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এতে ৫জন আহত হয়েছে। এব্যাপারে থানায় অভিযোগ দেয়া হয়েছে। মংলা থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোঃ ইকবাল বাহার চৌধুরী জানায়, উভয় পক্ষের পৃথক অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যাবস্থা নেয়া হবে বলেও জানায় এ কর্মকর্তা।