ভারতে সাবেকমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ তোলা তরুণীই গ্রেপ্তার

0
294

খুলনাটাইমস বিদেশ : উত্তর প্রদেশে বিজেপি নেতা চিন্ময়ানন্দের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ আনা আইনের ছাত্রীকে চাঁদাবাজির মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গ্রেপ্তার হতে পারেন আশঙ্কায় একদিন আগেই আদালতের কাছে সুরক্ষার আবেদন করেছিলেন তিনি।
মঙ্গলবার করা তার ওই আবেদনের ভিত্তিতে আদালত বৃহস্পতিবার শুনানির তারিখ ধার্য করেছিল। কিন্তু বুধবারই পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে বলে জানায় এনডিটিভি। ওই ছাত্রীর পরিবারের দাবি, “আজ সকালে বাড়িতে পুলিশ এসে তাকে জোর করে টানতে টানতে ঘর থেকে বের করে নিয়ে যায়। এমনকি তাকে স্যান্ডেল পর্যন্ত পরতে দেওয়া হয়নি।” একদল পুরুষ পুলিশ সদস্য তাকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপতালে নিয়ে যায় বলেও জানান ওই ছাত্রীর বাবা। “হাসপাতাল থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাকে গ্রেপ্তারের প্রয়োজনীয় কাগজে আমার কাছ থেকে জোর করে স্বাক্ষরও নেয় পুলিশ।” অথচ ওই ছাত্রী যার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন সেই ৭২ বছরের চিন্মায়ানন্দ এখন কারাগারে নয় বরং হাসপতালে আছেন। উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের ঘনিষ্ঠজন হওয়ায় সাবেক এই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নানা সুবিধা পাচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। থানায় মামলা না নেওয়ায় গত ২৩ অগাস্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে একটি ভিডিও পোস্টে সর্বপ্রথম চিন্ময়ানন্দের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ আনেন ওই তরুণী।
পরদিন থেকেই নিখোঁজ হয়ে যাওয়ায় তরুণীর পরিবার থানায় অভিযোগ করেন। পরে পুলিশ রাজস্থানের জয়পুর থেকে তাকে উদ্ধার করে। উদ্ধারের পর তরুণী পুলিশকে বলেন, চিন্ময়ানন্দের ভয়ে তিনি বন্ধুদের সঙ্গে পালিয়ে গিয়েছিলেন। ওই সময় তিনি ধর্ষণের এবং এ বিষয়ে পুলিশের নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগও তোলেন। তার দাবি, তিনি গোপন ক্যামেরায় ‘চিন্ময়ানন্দের কুর্কীতির’ ভিডিও ধারন করেছেন।এ খবর প্রকাশের পর ভারত জুড়ে হইচই পড়ে যায়। এমনকি যোগী আদিত্যনাথের ঘনিষ্ঠজন চিন্ময়ানন্দকে আড়াল করার চেষ্টার অভিযোগও উঠে। নানা সমালোচনার মুখে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে বিশেষ তদন্ত দল (সিট) উত্তর প্রদেশের সহারনপুর আশ্রম থেকে গত শুক্রবার চিন্ময়ানন্দকে গ্রেপ্তার করে। কিন্তু গত রোববার অসুস্থতার কথা বলে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। আনন্দবাজারে কয়েকদিন আগের একটি প্রতিবেদনে অভিযোগকারী তরুণী প্রমাণ হিসেবে তদন্ত দলের হাতে মোট ৪৩টি ভিডিও তুলে দিয়েছেন বলে জানানো হয়েছিল।