ব্যাটিংয়ের পর বোলিংয়েও হতাশ করলো টাইগাররা

0
306

স্পোর্টস ডেস্ক:

অ্যান্টিগা টেস্টের প্রথম দিনটা হতাশায় কাটলো বাংলাদেশর। ব্যাটিংয়ে ভরাডুবির পর বল হাতেও সুবিধা করতে পারেনি টাইগাররা। বাংলাদেশকে ৪৩ রানে অলআউট করে ব্যাটিংয়ে দিন শেষ করেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২ উইকেটে ২০১ রানে। যাতে প্রথম ইনিংসে স্বাগতিকরা লিড নিয়েছে ১৫৮ রানের।

প্রথম ইনিংসে মাত্র ৪৩ রানে অলআউট হয়ে গেছে বাংলাদেশ। বল হাতে তাই ভালো শুরুর প্রত্যাশা ছিল টাইগারদের। কিন্তু পারেনি, উল্টো ক্যারিবিয়ান দুই ওপেনার ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট ও ডেভন স্মিথ দারুণ শুরু এনে দেন। ৯০ রানের অবিছিন্ন জুটি গড়ে চা বিরতিতে যাওয়া এই দুই ওপেনার যোগ করে যান ১১৩ রান।

যে পিচে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা অসহায় আত্মসমর্পণ করেছে, সেই পিচে কীভাবে ব্যাটিং করতে হয়, সেটাই দেখিয়ে চলেছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। চমৎকার ব্যাটিংয়ে সফরকারীদের পেসার ও স্পিনারদের সামলেছেন ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যানরা। ব্র্যাথওয়েট ও স্মিথ- দুজনই পূরণ করেছেন হাফসেঞ্চুরি। তাদের আউটই করতে পারছিলেন না বাংলাদেশি বোলাররা।
অবশেষ সফল হন অভিষিক্ত আবু জায়েদ রাহীর। তার বলেই ৫৮ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন স্মিথ। ১২৩ বলের ইনিংসটি এই ওপেনার সাজান ৭ বাউন্ডারিতে। ব্র্যাথওয়েটকে অবশ্য আউটই করা যায়নি। চমৎকার ব্যাটিংয়ে হাফসেঞ্চুরি তুলে নিয়ে সেঞ্চুরির পথে আছেন তিনি। দিন শেষ করেছেন এই ব্যাটসম্যান ৮৮ রানে অপরাজিত থেকে।

তবে দিনের শেষ ভাগে আউট হয়ে গেছেন কিয়েরন পাওয়েল। বাংলাদেশকে দ্বিতীয় সাফল্য এনে দেন মাহমুদউল্লাহ। এই স্পিনারের বলে লিটন দাসের হাতে ধরা পড়ার আগে পাওয়েল খেলেন ৪৮ রানের ইনিংস। তার আউটের পর নাইটওয়াচম্যান হিসেবে নামা দেবেন্দ্র বিশু দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করবেন ১ রান নিয়ে।

এর আগে বাংলাদেশে ইনিংসের খেলা শুরু হতে হতেই শেষ! ক্যারিবিয়ান পেসারদের সামনে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের অসহায় আত্মসমর্পণের দৃশ্যই কেবল দেখা গেছে ১৮.৩ ওভার স্থায়ী হওয়া প্রথম ইনিংসে, যেখানে মাত্র ৪৩ রানে অলআউট হওয়ার লজ্জায় ডুবেছে বাংলাদেশ।

কেমার রোচের আগুন বোলিংয়ে বিধ্বস্ত বাংলাদেশের টপ অর্ডার, এরপর মিগেল কামিন্স লোয়ার অর্ডার ছেঁটে দিলে অ্যান্টিগা টেস্টে বাংলাদেশ পায় বড় লজ্জা। একটা সময় তো টেস্ট ক্রিকেটের সর্বনিম্ন স্কোর করার রেকর্ডও চোখ রাঙাচ্ছিল বাংলাদেশের দিকে! তবে সেটা না হলেও টেস্ট ক্রিকেটের ষষ্ঠ সর্বনিম্ন স্কোর গড়ার লজ্জাটা এড়াতে পারেনি সাকিবরা।