বেতন বাড়ছে ক্রিকেটারদের

0
360

স্পোর্টস রিপোর্টার:
বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকা বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের বেতন বাড়ছে। গত বছর এপ্রিলেই ক্রিকেটারদের বেতন বাড়িয়েছিল বিসিবি। বছর ঘুরতেই আবার সেই এপ্রিলে সুখবর পেতে যাচ্ছেন মাশরাফি-সাকিব-তামিমরা। চলতি সপ্তাহেই অনুষ্ঠিত হতে পারে বিসিবির বোর্ড সভা। পরিচালকদের সেই সভাতেই ক্রিকেটারদের বেতন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হতে পারে। বিভিন্ন শ্রেণির ক্রিকেটারদের বেতন পুনর্বিন্যাস করছে বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি। চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারের সংখ্যা কমিয়ে আনার প্রস্তাবও তৈরি হচ্ছে।
বোর্ড সভায় ক্রিকেটারদের বেতন বাড়ানোর প্রস্তাব করবে ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি। এ কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান গতকাল মিরপুর স্টেডিয়ামে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ‘আমরা গতবার যেমন প্রায় শতভাগ বেতন বাড়িয়েছিলাম। সে বিষয়টা আমাদের মাথায় আছে এবং আস্তে আস্তে এটা বাড়াব। কিন্তু অন্য দলের সঙ্গে যদি আমরা তুলনা করি তাহলে ঠিকই আছে। আমরাতো সাধারণত বাড়াই। যতদিন যাচ্ছে বেড়েই যাচ্ছে। ইনশাল্লাহ এবারও বাড়বে।’
প্রায় প্রতিবছরই ক্রিকেটারদের বেতন বাড়ানো হয়। তবে গতবছর সিনিয়র ক্রিকেটারদের দাবিতে বেতন কাঠামোতে বড় পরিবর্তন আনা হয়েছিল। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সাফল্যের পুরস্কার হিসেবে ক্রিকেটারদের সন্তুষ্ট করতে শতভাগ বেতন বাড়ানো হয়েছিল। গতবছর মাশরাফি-সাকিবদের ‘এ প্লাস’ শ্রেণির বেতন আড়াই লাখ থেকে বাড়িয়ে চার লাখ টাকা করা হয়েছিল। ‘এ’ শ্রেণিতে থাকা একমাত্র ক্রিকেটার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের বেতন দুই লাখ থেকে বাড়িয়ে তিন লাখ, ‘বি’ শ্রেণিতে ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক, সাব্বির রহমান ও সৌম্য সরকারদের বেতন দেড় লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে দুই লাখ, ‘সি’ শ্রেণিতে রুবেল হোসেন, তাসকিন আহমেদ, মুস্তাফিজুর রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের বেতন এক লাখ থেকে বাড়িয়ে দেড় লাখ, ‘ডি’ শ্রেণির বেতন ৭৫ হাজার থেকে বাড়িয়ে এক লাখ টাকা করা হয়েছিল।
তারপরও বিভিন্ন দেশের তুলনায় পারিশ্রমিকে পিছিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। আকরাম খান অবশ্য অন্য দেশের সঙ্গে তুলনায় যেতে রাজি নন। তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলোয়াড়রা যে পারিশ্রমিক পায় অন্য অনেক দেশেই কিন্তু এরচেয়ে কম। সেসব কিন্তু সবার মাথায় রাখা উচিত। যেসব ক্রিকেটার এসব নিয়ে কথা বলে তাদেরও ভাবা উচিত।’
গতবছর কেন্দ্রীয় চুক্তিতে ছিলেন ১৬ ক্রিকেটার। এবার সংখ্যাটা কমাতে চায় বিসিবি। গতকাল আকরাম খান বলেছেন, ‘সবার সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেই আমরা চূড়ান্ত করব। তবে বেশি না থেকে কম থাকাটাই ভালো।’ বিভিন্ন শ্রেণিতে ক্রিকেটারদের অবস্থানেরও পুনর্বিন্যাস হবে। নতুন করে বিসিবির চুক্তিতে ঢুকতে পারেন লিটন কুমার দাস। সম্প্রতি তিন ফরম্যাটেই খেলছেন তিনি। ব্যাট হাতে পারফর্মও করেছেন এ উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্টে ভালো করার পর সর্বশেষ নিদাহাস ট্রফিতেও ব্যাটিংয়ে ঝড়ো ইনিংস খেলেছেন লিটন। বিসিবির বোর্ড সভা এপ্রিলে হলেও ক্রিকেটারদের নতুন বেতন কাঠামো যথারীতি ২০১৮ সালের জানুয়ারি মাস থেকেই কার্যকর হবে।
ক্রিকেটারদের বর্তমান বেতন কাঠামো শ্রেণি বেতন
এ-প্লাস চার লাখ
এ তিন লাখ
বি দুই লাখ
সি দেড় লাখ
ডি এক লাখ