বিশ্বের সবচেয়ে উচুতে অবস্থিত যে মসজিদ

0
595

অনলাইন ডেস্ক: চীনের স্বায়ত্বশাসিত অঞ্চল তিব্বতের লাসায় সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে ৩ হাজার ৬৫০ মিটার উচুতে অবস্থিত হেবালিন মসজিদ। এটি বিশ্বের সবচেয়ে উচুতে অবস্থিত মসজিদগুলোর একটি। ১৭১৬ সালে মসজিদটি প্রথম নির্মাণ করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৫৯ সালে পুনরায় সংস্কার করা হয়। হেবালিন মসজিদ কমপ্লেক্সের তিনটি প্রবেশদ্বার রয়েছে। এর মোট আয়তন ২ হাজার ৬০০ বর্গ মিটার। মসজিদটিতে নামাজের স্থান, পাই বিল্ডিং, বাঙ্কার বিল্ডিং, ওজুখানা, গোসলখানাসহ বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা রয়েছে।  মসজিদটি ঐতিহ্যবাহী জাং স্থাপত্যশিল্পের সাথে স্থানীয় ও ধর্মীয় বৈশিষ্টের সম্মিলনে নির্মিত। এর স্তম্ভ ও চূড়া তিব্বতীয় স্টাইলে নির্মিত। আর মসজিদের ভেতরে অংশ ইসলামিক স্থাপত্যকলা অনুযায়ী ফুল ও বিভিন্ন গাছের চিত্রাঙ্কিত রয়েছে। বিভিন্ন সূত্রের অনুমান করা হয় যে, চীনের মোট মুসলিম জনসংখ্যার ১ থেকে ৩ শতাংশ মুসলমানরা কনফুসিয়ানবাদ, তাওবাদ, চীনা বৌদ্ধধর্ম এবং নাস্তিকতার সাথে চীনা লোকের মতাদর্শের আধ্যাত্মিক বিশ্বাসগুলির দ্বারা বিশেষভাবে প্রভাবিত।

আরো দেখুন : ঢেউয়ে ভাসে মসজিদ : তিন মিনিট পরপর খুলে যায় ছাদ
মরক্কোর মাটিতে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে থাকা দৃষ্টিনন্দন পানিতে ভাসমান এ মসজিদটির নাম গ্র্যান্ড মস্ক হাসান–২ বা দ্বিতীয় হাসান মসজিদ। একে ভাসমান মসজিদ বলার কারণ হচ্ছে, মসজিদটির তিন ভাগের এক ভাগ আটলান্টিক মহাসাগরের ওপর অবস্থিত। দূরের কোনো জাহাজ থেকে দেখলে মনে হয়, ঢেউয়ের বুকে যেন মসজিদটি দুলছে আর মুসল্লিরা যেন নামাজ পড়ছেন পানির ওপর।মহাসাগরে ভাসমান এ মসজিদটি মরক্কোসহ আফ্রিকার সবচেয়ে বড় মসজিদ। ঝড়–বৃষ্টির সময় ছাড়া প্রাকৃতিক আলো ও মুক্তবাতাস প্রবেশ করায় মসজিদটির ছাদ স্বয়ংক্রিয়ভাবে খুলে যায় তিন মিনিট পরপর। ৩৩ ফুট উচ্চতার সামুদ্রিকঢেউ সামলে নেওয়ার ব্যবস্থা আছে মসজিদটিতে। সমুদ্রের কোনো গর্জন শোনা যায় না মসজিদটির ভেতর থেকে। ২২ দশমিক ২৪ একর জায়গার ওপর অবস্থিত এ মসজিদের মূল ভবনের সঙ্গে আছে সভাকক্ষসহ লাইব্রেরি, কোরআন শিক্ষালয়, অজুখানা। আড়াই হাজার পিলারের ওপর স্থাপিত এ মসজিদের ভেতরের পুরোটায়ই টাইলসবসানো। মসজিদ এলাকার আশপাশ সাজানো হয়েছে ১২৪টি ঝরনা ও ৫০টি ক্রিস্টালের ঝাড়বাতি দিয়ে। শুধু তা–ইনয়, কোথাও কোথাও এসব মোড়ানো হয়েছে স্বর্ণের পাত দিয়ে। মসজিদটির মেঝে থেকে ছাদের উচ্চতা ৬৫ মিটার। মেহরাবের উচ্চতা দোতলা ভবনের সমান। আর মিনারের উচ্চতা ২১০ মিটার। ৬০ তলা ভবনের সমান এমিনারের ওপর রয়েছে লেজার রশ্মি, যা নাবিকদের দেখিয়ে দেয় পবিত্র কাবা শরিফের পথ। ৩০ কিলোমিটার দূরথেকেও স্পষ্ট দেখা যায় এই লেজার রশ্মি। বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু মিনার এটি। মরক্কোর বাদশাহ দ্বিতীয় হাসান মসজিদটি তৈরি করেছেন। এটি নির্মাণে কাজ করেছেন ফরাসি কম্পানি বয়গিসের প্রকৌশলীরা। আর নকশা করেছেন ফরাসি স্থপতি মিশেল পিনচিউ।