বিকাশের বিরুদ্ধে মিথ্যা মাদক মামলা দেওয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

0
466

স্টাফ রিপোর্টার:

হরিণটানা থানা শাখার হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি বিকাশ কুমার দে’কে হরিণটানা থানা পুলিশ ইয়াবা দিয়ে মিথ্যাভাবে মাদক মামলায় ফাঁসানোর প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ঐক্য পরিষদ মহানগর শাখার নেতৃবৃন্দ।
মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় খুলনা প্রেসক্লাবে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ মহানগর শাখা সভাপতি বীরেন্দ্রনাথ ঘোষের সঞ্চালনায় লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সাধারণ সম্পাদক গোপাল চন্দ্র সাহা। লিখিত বক্তৃতায় বলা হয়, গত ৯ জুন খুলনা বিকাশ কুমার দে’কে হরিণটানা থানা পুলিশ একটি নন জি.আর.ও মামলার ওয়ারেন্টের আসামী হিসাবে তার নিজ বাসভবন থেকে ভোর ছয়টায় গ্রেফতার করে। একইসাথে কৈয়া বাজারে কয়েকজনকে ডেকে বলা হয়, বিকাশকে ওয়ারেন্টের আসামী হিসাবে থানায় নিয়ে যাচ্ছি তোমরা এই কাগজে স্বাক্ষর কর। এই কথা বলে কয়েকজনের কাছ থেকে সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেয়া হয়। অতঃপর হরিণটানা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ নাসিম খান তাকে ৫২ পিস ইয়াবা দিয়ে মিথ্যা মাদক মামলা দিয়ে আদালতে চালান দেয়। একইসাথে বিকাশের ব্যাপারে কোন রকম আন্দোলন বা কোন কথা বলা যাবে না বলে সতর্ক করে পুলিশ। বাড়াবাড়ি করলে তাদের ক্রসফায়ারেরও হুমকি দেওয়া হয়।
সম্মেলনে আরও বলা হয়, বিকাশের পরিবারের সদস্যদের থানায় ডেকে নিয়ে হরিণটানা থানা অফিসার ইনচার্জ এ নিয়ে কোন বাড়াবাড়ি করতে নিষেধ করেন এবং বাড়াবাড়ি করলে বিকাশের আরও ভয়ঙ্কর ক্ষতি হবে বলেও জানান। উল্লেখ্য বিকাশ কৈয়া বাজার এলাকার একজন জনপ্রিয় ব্যক্তি এবং কৈয়া বাজার ব্যবসায়ী কমিটির বিপুল ভোটে নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক। এছাড়া সে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান এবং বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদে প্রতিষ্ঠিত আছেন। প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে অপর একটি গ্রুপ সন্ত্রাসীদের ভাড়া করে ২০১৭ সালের ৩১ জানুয়ারি চিহ্নিত কিছু কুখ্যাত সন্ত্রাসীরা বিকাশ ও কৈয়া বাজার কমিটির নির্বাচিত সভাপতি মোঃ মিঠুকে হত্যার উদ্দেশ্যে তাদের ওপরে হামলা চালায়। তারা দুজনেই ভাগ্যের জোরে প্রাণে বেঁচে গেলেও গুরুতর ভাবে আহত হন। সম্মেলনে আরও দাবী করা হয় বিকাশ কুমার দে কখনই মাদকের সাথে সংশ্লিষ্ট ছিল না। অতীত কিংবা বর্তমানে তার বিরুদ্ধে কোন মাদকের অভিযোগ নাই। উপরন্তু সে মাদকের বিরুদ্ধে সব সময়ই সোচ্চার ছিলেন। সে বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক বিধায় কোন মাদক ব্যবসায়ী ঐ এলাকায় আস্তানা গাড়তে পারে নি। সে অনেক মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীকে পুলিশে সোপর্দ করেছে। এমন একজন ব্যক্তিকে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে কোর্টে সোপর্দ করার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়েছে।
হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ চলমান মাদক বিরোধী অভিযানকে স্বাগত জানায়। তবে নিরাপরাধী কাউকে মাদক মামলায় দিয়ে হয়রানী করা কোণ ভাবেই ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দ সমর্থন করে না। তারা এঘটনার তদন্তপূর্বক বিচার আশা করেন। এবং এঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের শাস্তির আওতায় আনার দাবী জানান।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পরিষদের সহ-সভাপতি শ্যামল রায় ও সমর কুন্ডু, সহ-সাধারণ সম্পাদক প্রশান্ত দাস, বিপুল পোদ্দার, রঘুনাথ ঘোষ কালা, রনজিৎ সরকার রুনু, বিশ্বজিৎ সরকার, বলরাম ঘোষ, সুখদেব ঘোষ, সাংবাদিক বিমল সাহা, নারায়ণ চন্দ্র মন্ডল, মিন্টু আঢ্য, শ্রীমতি মুক্তি রায়, আনন্দ কুমার স্বর, অনিমেষ কুমার সাহা, তুষার সরকার, পলক পোদ্দার, রামচন্দ্র পোদ্দার, বিভাকর বিশ্বাস, বিশ্বজিৎ সাহা, সুকুমার সাহা, তপন চক্রবর্তী, সমীর কুমার সরকার, সাহা প্রফুল্ল্য কুমার, দেবাশীষ বিশ্বাস, গণেশ মন্ডল, নিতাই সরদার, অভিজিৎ সাহা বাপ্পা, উত্তম গোলদার প্রমূখ।