বিএনপি-যুবদল-ছাত্রদলের হামলার প্রতিবাদে খুলনা মহানগর ও জেলা ছাত্রলীগের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

0
70

খবর বিজ্ঞপ্তি:
খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও খুলনা জেলা পরিষদের প্রশাসক শেখ হারুনুর রশিদ বলেন “গত দুই বছরের করেনা মহামারী কাটিয়ে ও বিশ^ব্যাপী অর্থনৈতিক মন্দা কাটিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনা নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ বিশে^র বুকে মাথা উচু করে চলছে। বাংলাদেশ আজ যখন নিজের সক্ষমতা জানান দিয়ে আমাদের গর্বের পদ্মা সেতু সহ বিভিন্ন মেগা প্রকল্প উদ্বোধনের দ্বারপ্রান্তে, ঠিক তখনই বিএনপি জামায়ত আবারও ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। তারা আওয়ামী লীগ সরকারের অভূতপূর্ব উন্নয়নে ঈর্শান্বিত ও দিশেহারা হয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করতে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন স্থানে সন্ত্রাসী হামলা করছে। তারা বুঝতে পেরেছে যে, তারা ভোটের মাধ্যমে আগামী নির্বাচনেও ক্ষমতায় আসতে পারবে না, সেজন্য তারা দেশ বিরোধী ষড়ন্ত্রের পথ বেঁছে নিয়েছে। তাদের এই অপরাজনীতি আমাদের প্রতিহত করতে হবে। তিনি আরও বলেন বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়ন মানুষের দ্বারে দ্বারে প্রচার ও বিএনপি জামায়ত শিবির ছাত্রদল যুবদলের অপপ্রচার আমাদের রুখতে হবে।

ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের উপর হামলা এবং গত ২৬ মে খুলনা মহানগর ও জেলা ছাত্রলীগের শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ মিছিলে বিএনপি-যুবদল-ছাত্রদলের নগ্ন হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচীতে এসব কথা বলেন খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্রশাসক শেখ হারুনুর রশিদ।

রবিবার বিকাল ৬ ঘটিকায় নগরীর পিকচার প্যালেস মোড়ে এ মানববন্ধন কর্মসূচী অনুষ্টিত হয়। মানববন্ধন কর্মসূচীতে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাড সুজিত কুমার অধিকারী এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা কামরুজ্জামান জামাল, মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, শেখ মো: ফারুখ হাসান হিটলু, এম রিয়াজ কচি, হাফেজ মো: শামিম, এ্যাড মো: সাইফুল ইসলাম, অসিত বরণ বিশ^াস, এসএম আকিল উদ্দীন, ফয়েজুল ইসলাম টিটো, সফিকুর রহমান পলাশ, এম.এ নাসিম, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো: পারভেজ হাওলাদার। খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন এর সভাপতিত্বে এবং খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান রাসেল ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাাদক মো: ইমরান হোসেন এর পরিচালনায় আরও উপস্থিত ছিলেন খায়রুল বাসার, শতকত হোসেন, মোস্তফা শিকদার, হারুনুর রশিদ, মাহফুজুর রহমান সোহাগ, অভিজিৎ পাল, ইউসুপ আলী মন্টু, এম সবুজ হোসেন, শেখ রায়হান উদ্দীন, ছাত্রলীগ নেতা তাজমুল হক তাজু, আসাদুজ্জামান বাবু, মাসুদ হোসেন সোহান, রণবীর বাড়ই সজল, মো: মারুফ হোসাইন, রফিকুল ইসলাম রফিক, জব্বার আলী হীরা, জুবী ওয়ালিয় টুই, ইয়াসিন আরাফত, মেহেদী হাসান মান্না, পাপ্পু সরকার, নাসির হোসেন, মাহামুদুল ইসলাস সুজন, হামিম কবির রুবেল, আমির মোমেন রানা, আবু সাইদ খান, প্রতাপ ঘোষ, মোস্তাফিজুর রহমান রুবেল, রেজওয়ান মোড়ল, তানভীর রহমান আকাশ, তায়েজুল ইসলাম তাজ, ইবনুল হাসান, মুণাল কান্তি বাছাড়, শুভ সেন, শাহিদুল চৌধুরি, ইয়াসিন আরাফাত, মাহামুদুর রহমান রাজেস, হিরণ হাওলাদার, ফারহান অভি, আশিকুজ্জামান তানভীর, এম.এ হোসেন সবুজ, মো: আলমিন হাওলাদার, বায়েজিদ সিনা, কাজী নাজিব, সালমান রাজ, আহানাফ অর্পন, জোয়েব সিদ্দিকী, সাইফুল ইসলাম, সাজু দাশ, মশিউর রহমান বাদশা, অভিজিৎ রায় অভি, আরিফুল ইসলাম কাজল, শরিফ মাসুম, চিশতী নাজমুল, বাঁধন হালদার, শেখ মো: রাসেল, পিয়াল হাসান, শংকর কুন্ডু, আব্দুর রহমান, শিমুল দেবনাথ, ইমরান হোনে বাবু, শাহ আরাফাত রাহিব, মফিজুর রহমান মুন্না, মেহেদী হাসান সজিব, রবিউল ইসলাম প্রিন্স, সৈকত দাশ, ইসতিয়াক আহমেদ জয়, মো: গালিব হোসেন, আকতারুল আলম সুমন, ওলিউজ্জামান সানি, পলাশ রায়, শাকিল খান, অভিজিৎ সরকার রাহুল, ওমর কামাল, অরিন্দম চক্রবর্তী, মহাদেব গাইন, জনি বসু, নাহিদুজ্জামান নাহিদ, নিশাত ফেরদৌস অনি, রুমান আহমেদ, খান আবুল বাশার, শেখ মাসুদ রানা, মো: ইয়াসিন, হোসাইন আহমেদ, আনারুল ইসলাম, রুদ্রনীল হালদার শুভ।
এছাড়া রবিবার সকালে খুলনা মহানগর ছাত্রলীগের পূর্বঘোষিত বিক্ষোভ মিছিল মহানগরীর সরকারী আযম খান কমার্স কলেজ, সরকারী বিএল কলেজ, সরকারী মজিদ মেমোরিয়াল সিটি কলেজ, সরকারী সুন্দরবন আদর্শ কলেজ, সোহরাওয়াদ্দী কলেজ, হাজী মুহসিন কলেজ, দৌলতপুর ডে নাইট কলেজ ও খুলনা আলিয়া মাদ্রাসা ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।