বিএনপি জামায়াত ক্ষমতায় থাকলেই হয় হত্যা, ক্যু, ধর্ষন

0
536

বিজ্ঞপ্তি : বিএনপি ক্ষমতায় থাকলে দেশকে দূর্ণীতিতে শীর্ষে পৌছে যায়। দেশের মানুষ নিরাপত্তাহীনতায় থাকে। শুরু হয় হত্যা, ক্যু, ধর্ষন আর নারী নির্যাতনের মত জঘন্য অত্যাচার। আর শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ ও সমমনা রাজনৈতিক দল রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকলে দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে উঠে আসে। দেশ হয় উন্নত আর জাতি হয় মর্যাদা সম্পন্ন। বাংলাদেশের মানুষ আজ মর্যাদাশীল জাতি হিসেবে মাথা উচু করে বিশ্বে কথা বলতে পারছে। সেকারনেই দেশের মানুষ আজ ঐক্যবদ্ধ হয়েছে দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনাকে পুনরায় প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করে বাংলাদেশকে উন্নত বিশ্বে পরিণত করে মর্যাদাশীল জাতি হিসেবে মাথা উঁচু করে দাড়াবে।

জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে শুক্রবার (৫ অক্টোবর) বিকাল ৪টায় দলীয় কার্যালয় চত্বরে অনুষ্ঠিত খুলনা মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগ’র একাদশ নির্বাচনী ক্যাম্পেইন সমাবেশে এসব কথা বলে দলের নেতারা। সমাবেশ শেষে এক বিশাল মিছিল নগরীর প্রধান প্রধান প্রদক্ষিণ করে দলীয় কার্যালয়ে এসে শেষ হয়।

সমাবেশে নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, দেশরতœ জননেত্রী শেখ হাসিনা’র ধারাবাহিক উন্নয়নকে অব্যহত রাখতে পুনরায় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত করতে হবে। শেখ হাসিনাকে চতুর্থ বারের মত নির্বাচিত করে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর জন্ম শতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করে জাতিকে আত্ম মর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। নেতৃবৃন্দ কোন অপশক্তি যাতে বাংলাদেশকে নিয়ে ষড়যন্ত্র না করতে পারে সেজন্যে সকল নেতাকর্মীকে সোচ্চার থাকার জন্য আহবান জানান।

মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রিয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য এস এম কামাল হোসেন। প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও ১৪ দলের সমন্বয়ক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান এমপি।
এ সময়ে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগ নেতা এ্যাড. কাজী বাদশা মিয়া, কাজী এনায়েত হোসেন, এ্যাড. রজব আলী সরদার, এ্যাড. মো. সাইফুল ইসলাম, তসলিম আহমেদ আশা, ফকির মো. সাইফুল ইসলাম, হাজী নুরজ্জামান, আলাউদ্দিন আল আজাদ মিলন, আবুল কাশেম মোল্লা, মনিরুজ্জামান সাগর, এ্যাড. সেলিনা আক্তার পিয়া, নয়মী বিশ্বাস সাথী, পারভেজ হাওলাদার, এস এম আসাদুজ্জামান রাসেল। সভা পরিচালনা করেন, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ দপ্তর সম্পাদক মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ।

এসময়ে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগ নেতা এ্যাড. চিশতি সোহরাব হোসেন শিকদার, শেখ হায়দার আলী, আজমল আহমেদ তপন, মল্লিক আবিদ হোসেন কবীর, শেখ সিদ্দিকুর রহমান, এমডিএ বাবুল রানা, নুর ইসলাম বন্দ, আবুল কালাম আজাদ, শেখ মো. ফারুক আহমেদ, এ্যাড. আইয়ুব আলী শেখ, এ্যাড. নবকুমার চক্রবর্তী, শ্যামল সিংহ রায়, এ্যাড. ফরিদ আহমেদ, শেখ ফজলুল হক, জেড এ মাহমুদ ডন, অধ্যাপক আলমগীর কবীর, অধ্যাপক মিজানুর রহমান, হাফেজ মো. শামীম, মফিদুল ইসলাম টুটুল, শেখ মোশাররফ হোসেন, মোজাম্মেল হক হাওলাদার, স. ম. রেজওয়ান, মাহাবুবুল আলম বাবলু মোল্লা, শেখ মো. আবু হানিফ, খালেদীন রশিদী সূকর্ণ, বিএম সজীব, মো. মোতালেব হোসেন, এ্যাড. তারিক মাহমুদ তারা, টিএম আরিফ, আলমগীর সরদার, এস এম হাফিজুর রহমান হাফিজ, কামরুল ইসলাম, তাজুল ইসলাম, শেখ মো. ফারুক হোসেন, গাজী মোশাররফ হোসেন, আব্দুল হাই পলাশ, জামিরুল হুদা জহর, ফেরদৌস হোসেন লাবু, মঈনুল ইসলাম নাসির, চৌধুরী মিনহাজ উজ্জামান সজল, শেখ আব্দুল আজিজ, চ. ম. মুজিবর রহমান, জাহিদুল হক, নুর ইসলাম, শেখ আবিদ উল্লাহ, সাহেবুর রহমান পিটু মোল্লা, মো. শিহাব উদ্দিন, এ্যাড. শামীম মোশাররফ, শেখ এশারুল হক, আতাউর রহমান শিকদার রাজু, ফয়েজুল ইসলাম টিটো, গোপাল চন্দ্র সাহা, শেখ মো. রুহুল আমিন, মীর মো. লিটন, মো. মোতালেব মিয়া, মো. জাকির হোসেন হাওলাদার, ইউসুফ আলী খান, খন্দকার বাহাউদ্দিনসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।