ওকালত ও জামিন নামা জালিয়াতির অভিযোগে খুলনায় দু’আইনজীবীসহ আটক ৩

0
1016

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনাটাইমস:

বাংলাদেশ বার কাউন্সিল স্টিকার, ওকালত ও জামিননামা জালিয়াতির অভিযোগে খুলনায় দু’আইনজীবীসহ তিনজন আটক হয়েছে। শুক্রবার রাতে খুলনা জেলা আইনজীবী সমিতির নেতারা অভিযুক্তদের সদর থানায় হস্তান্তর করে। সমিতির সাধারণ সম্পাদক বাদি হয়ে সদর থানায় জাল-জালিয়াতি ও প্রতারণা আইনে মামলা (নং ৪৪) করেছে বলে অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান নিশ্চিত করেছেন।

আটক ডান হতে এড. এসএম আরিফুর রহমান, এড. শাহাদাত হোসেন ও পিয়ন লুৎফর রহমান.।

আটকেরা হলেন খুলনা জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য এড. শাহাদাত হোসেন, এড. এসএম আরিফুর রহমান ও সমিতির পিয়ন লুৎফর রহমান। এছাড়া আরেক অভিযুক্ত আইনজীবী এড. বিউটি আক্তার পলাতক রয়েছে।

এরমধ্যে বিউটি রুপসা উপজেলা বামনডাঙ্গা বাজারস্থ নূরানী গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের মেয়ে। সে ২০১৩ সালে খুলনা বারে যোগ দেয়। আরিফ সোনাডাঙ্গা মেইন রোডের হাউজ বিল্ডিং লেনের বাসিন্দা শাহজাহান তালুকদারের পুত্র, সে ২০১৩ সালের জুনে খুলনা বারে যোগ দেয়। আর শাহাদাত পাইকগাছা সরল গ্রামের জিএম শওকত হোসেনের পুত্র, সে ২০১৬ সালের জুনে খুলনা বারে যোগ দেয়।

সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এড. আলআমিন উকিল বলেন, একটি স্থানে ২৫০ টাকার ওকালতনামা ২৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, এমন সূত্র ধরে অভিযুক্তদের সনাক্ত করা হয়। কমমূল্যে বিক্রি করায় দোকানিকে ধরা হলে দেখা যায় সেগুলি সব জাল। সমিতির পিয়ন লুৎফুর এসব জাল করে কতিপয় স্থানে সরবরাহ করে ও বিক্রিলব্ধ অর্থ সংগ্রহ করেন বলে স্বীকারোক্তি দেয় দোকানি।

এরপর সমিতির নেতৃবৃন্দ পিয়নকে ধরলে বেরিয়ে আসে গোটা চক্রের সাথে জড়িত ওই তিন আইনজীবীর নাম। অভিযুক্তদের ধরা হলে তারা লিখিত জবানবন্দী দিয়ে দোষ স্বীকার করেছে বলে নিশ্চিত করেন খুলনা বার কাউন্সিলে উপস্থিত আইনজীবীরা।

পরে সমিতির নেতারা তাদের খুলনা সদর থানা পুলিশে সোর্পদ করে। তবে মহিলা আইনজীবীকে পলাতক রয়েছে। সূত্রমতে অভিযুক্তদের কাছ হতে ২৯টি বেল বন্ড ও ৪৪টি করে ওকালতনামা ও বার কাউন্সিল স্টিকার জব্দ করা হয়।