বার্সেলোনার পরাজয়ের সুযোগ কাজে লাগাতে পারলো না রিয়াল, এ্যাথলেটিকো

0
193

খুলনাটাইমস স্পোর্টস : শনিবার লা লিগায় লেভান্তের বিপক্ষে ৩-১ গোলের বিস্ময়কর পরাজয়ের তিক্ত স্বাদ পেয়েছে বার্সেলোনা। কিন্তু তারপরেও নিজ নিজ ম্যাচে ড্র করে বার্সেলোনাকে পিছনে ফেলার দারুন একটি সুযোগ হাতছাড়া করেছে রিয়াল মাদ্রিদ ও এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। লিওনেল মেসির প্রথমার্ধে পেনাল্টিতে ভ্যালেন্সিয়া স্টেডিয়ামে এগিয়ে গিয়েছিল বার্সেলোনা। গত পাঁচ ম্যাচে আর্জেন্টাইন তারকার এটি ছিল ষষ্ঠ গোল। কিন্তু এরপর পুরো ম্যাচই ছিল লেভান্তের দখলে। মাত্র সাত মিনিটের ব্যবধানে তিনটি গোল করে তারা কাতালান জায়ান্টদের হতবাক করে দেয়। ৬১, ৬৩ ও ৬৮ মিনিটে গোলগুলো করেছেন যথাক্রমে কাম্পানা, বোর্জা মায়োরাল ও নেমাঞ্জা রাডোজা। এদিকে রামোন সানচেজ পিজুয়ানে এ্যাথলেটিকো ও সেভিয়ার ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হয়েছে। ম্যাচে পেনাল্টির সুযোগ নষ্ট করেছেন দিয়েগো কস্তা। সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে রিয়াল বেটিসের সাথে গোলশুন্য ড্র করে পয়েন্ট হারিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদও। এর ফলে ১১ ম্যাচে ২২ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষেই থাকলো বার্সেলোনা। সমান পয়েন্ট নিয়ে গোল ব্যবধানে পিছিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। আর এক পয়েন্ট কম নিয়ে বেশ দৃঢ়ভাবেই এগিয়ে যাচ্ছে এ্যাথলেটিকো। লেভান্তের বিপক্ষে বার্সেলোনার এই পরাজয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই দলের সামনে সুযোগ ছিল টেবিলের শীর্ষ দুটি স্থান দখল করার। বার্সেলোনার কোচ আর্নেস্টো ভালভার্দে বলেছেন, ‘সবকিছুই এখানে উন্মোচিত হয়ে গেছে। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুটা আমরা ভাল করেছিলাম। কিন্তু কোন সুযোগ সৃষ্টি করতে পারিনি। বিপরীতে তারা হঠাৎ করেই দুই গোল করে বসে। তৃতীয় গোলটি আমাকে সবচেয়ে বেশী দু:খ দিয়েছে।’ সব ধরনের প্রতিযোগিতায় টানা সাতটি জয়ের পর বার্সেলোনা ফেবারিট হিসেবেই ভ্যালেন্সিয়ার মাঠে খেলতে নেমেছিল। বিশেষ করে বাম পায়ে মেসি ক্যারিয়ারের ৫০০তম গোল করার পর ফেবারিটের তকমাটা আরো উজ্জ্বল হয়। ভালভার্দে বলেন, ‘প্রতিপক্ষ সবসময়ই আমাদের বিপক্ষে এমনভাবে খেলে যে এটাই তাদের জন্য বছরের সবচেয়ে বড় ম্যাচ। যে কারনে অনেক সময় পরিস্থিতি কঠিন হয়ে পড়ে।’ বার্সার প্রতিটি পরাজয়ের পরই ভালভার্র্দের ভবিষ্যত নিয়ে একটি আলোচনা শুরু হয়। কালও তার ব্যতিক্রম ছিল না। দুটি প্রশ্ন তাকে ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে করা হয়েছিল, তিনি কি খেলোয়াড়দের পারফরমেন্সে বিস্মিত, পদত্যাগের বিষয়ে কিছু চিন্তা করছেন কিনা। উভয় প্রশ্নের উত্তরেই তিনি না বলেছেন। এই পরাজয়ের পাশাপাশি ৪১ মিনিটে ডান কাফ ইনজুরির কারনে লুইস সুয়ারেজের মাঠ ত্যাগ বার্সা কোচকে আরো বেশী দু:শ্চিন্তায় ফেলেছে। বিশেষ করে মঙ্গলবার ঘরের মাঠে স্লাভিয়া প্রাগের বিপক্ষে ম্যাচকে সামনে রেখে সুয়ারেজের খেলা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। নেলসন সেমেডোকে ফাউলের কারনে জর্জ মিরামোনের বিপক্ষে প্রাপ্ত পেনাল্টি থেকে ৩৮ মিনিটে বার্সাকে এগিয়ে দিয়েছিল মেসি। এরপরপরই মেসি ব্যবধান দ্বিগুন করতে পারতেন। কিন্তু এযাত্রা মিরোমোন লাইনের উপর থেকে তা ক্লিয়ার করেন। আক্রমনাত্মক মনোভাব নিয়েই দ্বিতীয়ার্ধ খেলতে নামে লেভান্তে। তারই ধারাবাহিকতায় মাত্র সাত মিনিটের ব্যবধানে তিন গোল করে দলকে দারুন এক জয় উপহার দেন কাম্পানা, মায়োরাল, রাডোজারা। বার্সেলোনার ম্যাচটি আগে হওয়ায় রিয়াল মাদ্রিদ, এ্যাথলেটিকো ও সেভিয়ার সামনে টেবিলের শীর্ষ স্থানে ওঠার দারুন একটি সুযোগ এসেছিল। বিশেষ করে রিয়াল বেটিসের বিপক্ষে মাদ্রিদের গোলশুণ্য ড্র কোনভাবেই মেনে নেয়া যায়না। এই বেটিসকেই হয়ত অন্য কোনদিন পাঁচ গোলের ব্যবধানে হারানোর ক্ষমতা রাখে গ্যালাকটিকোরা। এডেন হ্যাজার্ডের একটি গোল অফ-সাইডের কারনে বাতিল হয়ে যায়। সার্জিও রামোস ও করিম বেনজেমা যে সুযোগগুলো নষ্ট করেছেন তাতে লাভবান হয়েছে বেটিসই। এদিকে সেভিয়ার মাঠে ফ্র্যাংকো ভাজকুয়েজের গোলে ২৮ মিনিটেই এগিয়ে গিয়েছিল স্বাগতিকরা। ৬০ মিনিটে আলভারো মোরাতা এ্যাথলেটিকোর পক্ষে সমতা ফেরান। তবে ৭২ মিনিটে স্পট কিক থেকে কস্তার শট রুখে দিয়ে কাল ম্যাচের নায়ক হয়ে গিয়েছিলেন সেভিয়া গোলরক্ষক টমাস ভাকলিক।