বাঙালি জাতির মুক্তির বার্তা ৭ মার্চের ভাষণ : এমপি মিজান

0
531

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি:
খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও ১৪ দলের সমন্বয়ক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান এমপি বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সারাটি জীবন এদেশের মানুষের জন্য রাজনীতি করে গেছেন। ছাত্রজীবন থেকেই তিনি বাঙালির অধিকার আদায়ে আন্দোলন করেছেন। তার সফল পরিসম্পাত্তি হয় ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের মধ্যদিয়ে। বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ ছিলো বাঙালি জাতির মুক্তির বার্তা। তাঁর ভাষণের প্রতিটি শব্দই ছিলো অবহেলিত বঞ্ছিত মানুষের দাবি আদায়ের কথা।
সে কারনেই জাতিসংঘ চুলচেরা বিচার বিশ্লেষণ করে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণকে “মেমরী অব দ্যা ওয়াল্ড” উপাধি হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। বঙ্গবন্ধুর ভাষণকে স্বীকৃতি দেয়ায় বাংলাদেশ ও বাঙালিকে সমৃদ্ধ করেছে। তিনি আরো বলেন, আজ একটি মহল বাঙালির এই অর্জনকে ম্লাণ করে দিতে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে ষড়যন্ত্রকারীদের এই চক্রান্তকে প্রতিহত করতে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। আগামী নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠণ করে রূপকল্প ২০২১ এবং ২০৪১ বাস্তবায়ন করতে হবে।
আজ ৪ নভেম্বর শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় দলীয় কার্যালয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের উদ্বোধন কালে সভাপতির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগ নেতা কাজী এনায়েত হোসেন, এ্যাড. সরদার রজব আলী,আবুল কালাম আজাদ কামাল, মকবুল হোসেন মিন্টু, জেড এ মাহমুদ ডন, এ্যাড. সরদার আনিসুর রহমান পপলু, লুৎফুন নেচ্ছা লুৎফা, রনজিত কুমার ঘোষ, মনিরুজ্জামান সাগর, বিএম সজীব, এমডি মাহফুজুর রহমান লিটন, এ্যাড. রাবেয়া ওয়ালী করবী, এস এম আসাদুজ্জামান রাসেল। সভাপরিচালনা করেন, মহানগর আওয়ামী লীগ উপ-প্রচার ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক মফিদুল ইসলাম টুটুল এবং উপ-দপ্তর সম্পাদক হাফেজ মো. শামীম।
এসময়ে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগ নেতা শেখ হায়দার আলী, এমডিএ বাবুল রানা, নুর ইসলাম বন্দ, শেখ মো. ফারুক আহমেদ, জামাল উদ্দিন বাচ্চু, মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, অধ্যক্ষ শহিদুল হক মিন্টু, মো. জাহাঙ্গীর হোসেন খান, আকরাম হোসেন, শেখ মোশাররফ হোসেন, নুর এ আলম জোয়াদ্দার, মাহাবুবুল আলম বাবলু মোল্লা, আলমগীর সরদার, শাহ মো. জাকিউর রহমান, নয়মী বিশ্বাস সাথী, ফেরদৌস হোসেন লাবু, এশারুল হক, আতাউর রহমান শিকদার রাজু, রাজ্জাক হোসেন, কাউন্সিলর মাহমুদা বেগম, নুরজাহান রুমি, নুরীনা রহমান বিউটি, নাছরিন সুলতানা, কনিকা সাহা, আনিসুর রহমান অনি, শেখ সিদ্দিকুর রহমান, হাফেজ আবু দাউদ, ইকবাল কবীর লিটন, মিজানুর রহমান নাজু, মুজিবুর রহমান মুজিব, মো. শাহীন আলম, আহনাফ অর্পন, মো. রাজু, রুম্মান আহমেদ, মো. বাদশা সহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।
পরে সন্ধ্যায় ৫ নভেম্বর সন্ধ্যায় দোয়া এবং ৬ নভেম্বর বিকাল ৪টায় আনন্দ মিছিল সফল করতে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় মিছিল সফল করতে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়।