বটিয়াঘাটার মেম্বর নজরুল ইসলাম খানের বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

0
362

নিজস্ব প্রতিবেদক:
একটি স্বার্থানেষী মহল বটিয়াঘাটা ইউনিয়ন পরিষদের একাধিকবার নির্বাচিত ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম খানের জনপ্রিয়তায় ঈর্ষাণিত হয়ে তার ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্র ও মিথ্যাচার করে চলেছে। যা অত্যান্ত নিন্দনীয় ও দূঃখজনক। মূলত জনস্বার্থে নিজ অর্থায়নে একটি রাস্তা সংস্কার ও বটিয়াঘাটা সদরে একটি মহিলা মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করা এবং আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ায় একটি স্বার্থনেষী মহল গাত্রদাহ হয়ে এ সকল কাজ করে চলেছে। আমরা নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলক সকল ষড়যন্ত্র ও মিথ্যাচারের প্রতিবাদ জানাই। সোমবার বেলা ১১টায় খুলনা প্রেস ক্লাবে সংবাদ সস্মেলন করে এসব কথা বলেন ওই এলাকার কতিপয় বাসিন্দা।

লিখিত বক্তব্যে এসময় আরও জানানো হয়, ইউপি মেম্বর নজরুল ইসলাম খান শৈশব থেকে অনেক দূঃখ-কষ্টে জীবন সংগ্রামে আজ সমাজে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। হিন্দু অধ্যুষিত অঞ্চল হওয়ার পরও বটিয়াঘাটা সদর ইউনিয়নের ৯নং (হাটবাটি)ওয়ার্ডে একাধিকবার বিপুল ভোটে নির্বাচিত মেম্বর। সে বর্তমানে উক্ত ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান। ঐতিহ্যবাহী বটিয়াঘাটা হেড: কোয়ার্টার মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের দুইবার অভিভাবক সদস্য নির্বাচিত হন। বর্তমানে সে হাটবাটি বাইতুল করিম জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি, সালেহা বেগম সরকারী প্রাঃ বিদ্যালয়ের সভাপতি, ওয়ার্ড পুলিশিং কমিটির সভাপতি এবং হাটবাটি মহিলা মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠতা সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত এবং বটিয়াঘাটা উপজেলা আওয়ামীলীগের একজন সক্রিয় নেতা। ইতিপূর্বে তিনি পুলিশিং কমিটির কার্যক্রমে দক্ষতার পরিচয় দেওয়ায় পুলিশ ডিপার্টমেন্ট থেকে সম্মনা সরূপ ক্রেস্ট লাভ করেছেন।

এসময় তারা অভিযোগ করেন, সম্প্রতি নজরুল ইসলাম নিজ অর্থায়নে হাটবাটি মেইন সড়ক থেকে বটিয়াঘাটা বাজারে যাওযার জন্য একটি সংযোগ রাস্তায় মাটি ভরাট, হাটিবাটি মহিলা মাদ্রাসায় মাটি ভরাট, অসামাজিক কাজে বাধা, চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও ডাকাতের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়া এবং নিজেকে আগামী নির্বাচনে বটিয়াঘাটা সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী ঘোষণা দেওয়া একটি মহল তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। যা ধারাবাহিকতায় এলাকার বিভিন্ন অপকর্ম এবং বহু বিবাহের হোতা নারীলোভী মোয়াজ্জেম হোসেন মোল্যা ও দূধর্ষ সন্ত্রাসী ডাকাত সামাদ শেখকে দিয়ে বিভিন্ন অশলীন বাক্য ব্যবহার করে সংবাদ সম্মেলন করিয়েছেন। আমরা এঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সাথে বহু অপকর্মের হোতা মোয়াজ্জেম হোসেন মোল্যা ও দূধর্ষ সন্ত্রাসী ডাকাত সামাদ শেখসহ তাদের সহযোগীদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবী করছি। অন্যথায় সন্ত্রাসী ও ডাকাতরা মাথা চেড়ে দিয়ে উঠলে আমাদের শান্তি প্রিয় এলাকায় আবারও অশান্ত হয়ে উঠবে।