বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালনকারী প্রয়াত কর্মী কুটু’র আত্মত্যাগ থেকে শিক্ষা নিতে হবে: আ’লীগ

0
499

খবর বিজ্ঞপ্তি:
খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য ও ২৯ নং আওয়ামী লীগের সভাপতি শহীদ কামরুল ইসলাম কুটুর ১৬ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে খুলনা মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত শোক র‌্যালী ও স্মরণ সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, “আওয়ামী লীগ কে নেতৃত্ব শূন্য করার জন্য তৎকালীন বিএনপি জামায়ত জোট সরকার পরিকল্পিত ভাবে সারা দেশব্যাপী সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের উপরে হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিলো। ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগের ২৬ হাজার নেতা কর্মীদের হত্যা করে বিএনপি জামায়ত জোট সরকার। তার অংশ হিসেবে তারা খুলনায় আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাকর্মীদের হত্যায় লিপ্ত ছিলো। বিএনপি জামায়ত সন্ত্রাসীদের হাতে খুলনা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ও নিরাপদ ছিলো না। ২০০৩ সালে তারা আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা হামালা চালিয়ে খুলনা আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের হত্যার উদ্দেশ্যে বোমা হামলা চালায়, বোমা হামলায় আওয়ামী আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের কর্মী কামরুল ইসলাম কুটু নির্মম ভাবে নিহত এবং ২১ জন নেতাকর্মী গুরুত্বর আহত হন। এর কিছুদিন পূর্বে ২৫ আগস্ট খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি রাজনীতির সততার প্রতীক এ্যাড মঞ্জুরুল ইমাম এর মত নেতাকেও তারা হত্যা করেছিলো। তারা বোমা হামলা ও সন্ত্রাসী তৎপরতার মাধ্যমে একর পর এক হত্যা চালিয়ে শান্তির নগরী খুলনাকে মৃত্যুপূরীতে পরিণত করেছিলো। আজীবন বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালনকারী একজন কর্মী ছিলেন শহীদ কামরুল ইসলাম কুটু, তার মত কর্মীরা আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের সুসংগঠিত করেছিলো। নতুর প্রজন্মের নেতৃবৃন্দকে তার কাছ ত্যাগের শিক্ষা নিতে হবে।”
শুক্রবার বাদ মাগরিব দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্টিত স্মরণ সভায় খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও খুলনা সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক এর সভাপতিত্ব করেন। উক্ত স্মরণ সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ হারুনুর রশীদ এবং সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুষ্পুত্র ও খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য সেখ সালাহউদ্দীন জুয়েল। অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজান, আলহাজ্ব মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু এমপি, শেখ হায়দার আলী, কাজী এনায়েত হোসেন, মল্লিক আবিদ হোসেন কবির, এ্যাড রজব আলী সরদার, এমডিএ বাবুল রানা, বীর মুক্তিযোদ্ধা নূর ইসলাম বন্দ, মোঃ সরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চু, কামরুজ্জামান জামাল, এ্যাড আইয়ুব আলী শেখ, শ্যামল সিংহ রায়, মকবুল হোসেন মিন্টু, জামাল উদ্দীন বাচ্চু, জেড.এ মাহমুদ ডন, এ্যাড ফরিদ আহমেদ, ফেরদৌস আলম চাঁন ফরাজী, এ্যাড খন্দকার মুিজবর রহমান, এ্যাড অলোকা নন্দা দাশ, হালিমা ইসলাম, অধ্যাপক আলমগীর কবির, অধ্যক্ষ শহীদুল হক মিন্টু, জাহাঙ্গীর হোসেন খান, কামরুল ইসলাম বাবলু, হাফেজ মোঃ শামিম, শেখ নূর মোহাম্মদ, এ্যাড মোঃ সাইফুল ইসলাম, একেএম সানাউল্লাহ নান্নু, ফকির মোঃ সাইফুল ইসলাম, মাহাবুবুল আলম বাবলু মোল্লা, কাজী জাহিদুল ইসলাম, এইচ এম তৌহিদ, বিএম জাফর, কাউন্সিলর লুৎফুন্নেছা লুৎফা, অসিত বরণ বিশ্বাস, মনিরুজ্জামান সাগর, শেখ মোঃ আবু হানিফ, শফিকুর রহমান পলাশ, ফারুখ হাসান হিটলু, রণজিত কুমার ঘোষ, শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন, আসাদুজ্জামান রাসেল, কাউন্সিলর হাফিজুর রহমান হাফিজ, আব্দুল হাই পলাশ, মুন্সি আইয়ুব আলী, চ.ম মুজিবুর রহমান, ফেরদৌস হোসেন লাবু, মোঃ ফারুখ হোসেন, আলহাজ্ব শেখ এশারুল হক, গোপাল চন্দ্র সাহা, আতাউর রহমান শিকদার রাজু, মোঃ ফয়েজুল ইসলাম টিটো, মোঃ শিহাব উদ্দীন, মীর মোঃ লিটন, এ্যাড শামিম মোশাররফ, এ্যাড তারিক মাহমুদ তারা, এ্যাড এনামুল হক, এ্যাড কেএম ইকবাল হোসেন, ইলিয়াস পারভীন, পল্লব বিশ্বাস, মশিউর রহমান সুমন, শাহীন আলম, চয়ন বালা প্রমুখ। স্মরণ সভা পরিচালনা করেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের উপ প্রচার সম্পাদক মোঃ মফিদুল ইসলাম টুটুল এবং দোয়া পরিচালনা করেন হাফেজ মাওলানা শাহেদ হুসাইন। এর আগে সকালে নগরীর সাউথ সেন্ট্রাল রোডস্থ কয়লাঘাট প্রাইমারী স্কুল থেকে শোক র‌্যালী সহকারে নেতাকর্মীরা দলীয় কার্যালয়ে এসে শহীদ কামরুল ইসলাম কুট’ুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পন করেন। এসময় শহীদ কামরুল ইসলাম কুটুর পরিবারের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।