ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ছাত্রলীগ নেতার আত্মহত্যা

0
373

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বাশার মাহমুদ রাত নয়টা ২৫ ‍মিনিটে ফেসবুকে লিখেছিলেন, ‘আল্লাহ হাফেজ, সবাই ভাল থাকবেন ক্ষমা করবেন আমাকে’। সোমবার রাতের এই স্ট্যাটাস দেওয়ার পর বন্ধুরা কমেন্ট বক্সে কেউ লিখছেন ‘কি হয়েছে তোর’, আবার কেউ লিখেছে, ‘কোন সমস্যা নাই, আল্লাহর উপর ভরসা রাখো।’

নানা রকম বক্তব্যে শুভাকাঙ্ক্ষী বন্ধুরা বিভিন্ন কমেন্ট করলেও কোনো কমেন্টের উত্তর দেননি বাশার। এমনসব কমেন্টের মধ্যেই ভোর পাঁচটায় একজন কমেন্ট করেছেন ‘বাশার আর আমাদের মাঝে নেই’!

বাশারের মৃত্যুতে মঙ্গলবার ফেইবুকে শোক বার্তায় স্ট্যাটাস দেয় চান্দিনা উপজেলা ছাত্রলীগ ও বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের অনেক নেতা-কর্মী। তবে বিষয়টি একেবারে কিছু জানে না চান্দিনা থানা পুলিশ!

মঙ্গলবার রাতে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত চান্দিনা থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মুহাম্মদ শামছুল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই।

পরিবার-পরিজন, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব সকলকে হতাশ করে চিরদিনের জন্য পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়েছেন বাশার মাহমুদ। নিহত বাশার মাহমুদ চান্দিনা পৌর এলাকার ১নং ওয়ার্ডের কচুয়ারপাড় গ্রামের ব্যবসায়ী আব্দুল জব্বারের ছেলে। তিনি স্থানীয় উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। দুই ভায়ের মধ্যে বাশার ছোট।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পারিবারিক একটি বিষয় নিয়ে পিতা ও বড় ভাইয়ের সাথে মনোমালিন্য চলছিল তার। সোমবার নিজ আইডি থেকে ‘আল্লাহর কসম করে বলতেছি যদি আমার মৃত্যু হয় তার পুরো দায় আমার ফ্যামিলির, বিশেষ করে আমার ভাইয়ের, আমার মৃত্যুতে অন্য কারো প্ররোচনা ছিল না, আল্লাহ হাফেজ, সবাই ভাল থাকবেন ক্ষমা করবেন আমাকে।’

এমন স্ট্যাটাসের পরপরই আত্মীয়-স্বজনরা বাশারের পরিবারের সাথে যোগাযোগ শুরু করে। আর ততক্ষণে বাশার তার নিজ বাড়িতে আত্মঘাতী ওষুধ সেবন করে। পরিবারের লোকজন তাকে দ্রুত চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ঢাকায় নিয়ে যায়। ঢাকার একটি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু ঘটে। মঙ্গলবার দুপুরে জানাজা শেষে মরদেহ দাফন সম্পন্ন করা হয়।