প্রতিমন্ত্রীর ভাগ্নে পরিচয়ে মাটি লুট

0
197

ডুমুরিয়া প্রতিনিধি:
এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রীর ভাগ্নে ও যুবলীগ নেতা পরিচয়ে ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে আপার ভদ্রা নদী খননের প্রায় ৩০ লাখ টাকার সরকারি মাটি কেটে বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় সোমবার দুপুরে স্থানীয় গ্রামবাসী সরকারি মাটি কাটা বন্ধ করে একটি এক্সক্যাভেটর আটক রেখেছে। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার খুলনার ডুমুরিয়ার আটলিয়া ইউনিয়নের কাঁঠালতলা আপার ভদ্রা নদীর পাড় এলাকায়।
গত বছর বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড খুলনার ডুমুরিয়া ও যশোরের কেশবপুর উপজেলার অভ্যন্তরে ১৯ কিলোমিটারজুড়ে ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে আপার ভদ্রা নদী খনন করে। মাটি তুলে নদীর দুই পাড়ে রাখায় গ্রাম প্রতিরক্ষা বাঁধ মজবুত হয়। এই মাটি কেটে নিয়েছে যশোরের মনিরামপুর উপজেলা যুবলীগ নেতা ও এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্যের ভাগ্নে পরিচয়ে পলাশ চক্রবর্তী নামে এক যুবক। ভুয়া কাগজপত্রে পাউবো থেকে টেন্ডার পাওয়ার দাবি করে কাঁঠালতলা বাজার এলাকা থেকে গত এক সপ্তাহে প্রায় ৩০ লাখ টাকার মাটি কেটে বিক্রি করা হয়েছে। অভিযুক্ত পলাশ চক্রবর্তীর দাবি, তিনি প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্যের ভাগ্নে। ডুমুরিয়ার আটুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা গৌতম ঘোষ, ইব্রাহীম মোল্লা ও বিশ্বজিৎ মজুমদারের সহযোগিতায় মাটি কাটা হয়েছে। কেশবপুরের পাউবোর উপ-বিভাগীয় কর্মকর্তা মুন্সী আছাদুজ্জামান বলেন, আপার ভদ্রা নদীর মাটি কাটাতে টেন্ডার দেওয়া হয়নি। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকায় আমাকে অনেকেই মামা বলে ডাকেন। পলাশ চক্রবর্তী নামে আমার কোনো ভাগ্নে নেই।