পাইকগাছায় লীজ ঘেরের বাসা ভাংচুর, লুটপাট, মারপিট ও অগ্নিসংযোগের মামলায় সকল আসামীর জামিন লাভ

0
315

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি:
পাইকগাছায় লীজ ঘেরের বাসা ভাংচুর, লুটপাট, মারপিট ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় সকল আসামীর জামিন লাভ। বিজ্ঞ আদালত উভয়পক্ষের শুনানী শেষে এ জামিন আদেশ দেন। উপজেলার বয়ারঝাপা গ্রামের মোঃ আরশাদ খা’র পুত্র হামিদ খা’র দায়েরকৃত মামলা সূত্রে জানা যায়, সোলাদানা ট্রলার ঘাট সংলগ্ন তার মৎস্য লীজ ঘেরে একই গ্রামের বজলু গাজীর পুত্র মোজাম গাজীর নেতৃত্বে গত মঙ্গলবার দুপুরে হামলা করে। এ সময় তারা লীজ ঘেরের বাঁধ কর্তন, মারপিট ও বাসা ভাংচুর করে। এ ঘটনায় হামিদ খাঁ বাদী হয়ে মোজাম গাজী সহ ১২জনের নামে পাইকগাছা থানায় জি.আর ৩৪২/১৯ নং মামলা দায়ের করে। উক্ত মামলায় বৃহস্পতিবার সকলে আদালতে আত্মসমার্পণ করলে পাইকগাছা উপজেলা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত তাদের জামিন মঞ্জুর করেন। এ ঘটনায় হামিদ খা বলেন, আমার স্ত্রীর সহিত পূর্বে মোজাম গাজীর বিবাহ হয়। তখন মোজাম ও আমার স্ত্রী ফিরোজা বেগমের নামে একটি খাস জমি বন্দোবস্ত হয়। পরবর্তীতে তাদের ছাড়াছাড়ি হলে আমার সহিত বিবাহের কারণে উক্ত সম্পত্তি থেকে তাকে বঞ্চিত করার পাঁয়তারা করছে। এদিকে, হামিদ খা’র কথা প্রত্যাখ্যান করে মোজাম গাজী জানায়, হামিদ খাঁ এবং আমি বয়ারঝাপা গুচ্ছ গ্রামের বাসিন্দা হইতেছি। সরকার উক্ত গ্রামের বাসিন্দাদের জন্য সরকারি জায়গা বন্দোবস্ত প্রদান করে। হামিদের স্ত্রী ফিরোজার সহিত আমার বিবাহ ছিল ঠিকই কিন্তু তার নামে কোন সম্পত্তি বন্দোবস্ত হয়নি। আমার পরবর্তী স্ত্রীর নামও ফিরোজা বেগম হওয়ায় তারা নামকে পুঁজি করে আমার সম্পত্তি অবৈধ দখলের চেষ্টা করছে। কারণ হামিদ খাঁ এবং ফিরোজা বেগমের নামে সরকার কর্তৃক গুচ্ছ গ্রামের জায়গা বন্দোবস্ত প্রদান করেছেন। যার দলিল নং- ৪৭৮৯/০৫। যেখানে ফিরোজার পিতার নাম আপ্তাব গাজী। এদিকে আমার ও আমার স্ত্রী ফিরোজা বেগমের নামে সরকার কর্তৃক ৩৪৬১/৯৬ নং খাস বন্দোবস্ত দলিল রেজিস্ট্রি হয়। যেখানে আমার স্ত্রীর পিতার নাম আরশাদ গাজী। শুধুমাত্র আমার স্ত্রীর নাম ফিরোজা বেগম হওয়ায় নামকে পুঁজি করে আমার সম্পত্তি অবৈধভাবে দখলের চেষ্টা করছে।