পাইকগাছায় প্রধান শিক্ষককে মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ

0
251

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি:
পাইকগাছায় খড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিষ্ণুপদ মন্ডলকে বিদ্যালয়ের সভাপতি কুমারেশ চন্দ্র রায় প্রায় ডজন খানেক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। দীর্ঘ ২০ মাস বেতন ভাতা থেকে বঞ্চিত থাকায় প্রধান শিক্ষক এখন মানবেতর জীবন যাপন করছে। এর প্রতিকার চেয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সহ প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভুক্তভোগী প্রধান শিক্ষক।
উপজেলার খড়িয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিষ্ণুপদ মন্ডল জানান, বিদ্যালয়ের সভাপতি কুমারেশ মন্ডল রায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পাইকগাছা জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত, নির্বাহী আদালত, শিক্ষা বোর্ড, পাইকগাছা সহকারী জজ আদালত সহ বিভিন্ন দপ্তরে আমার ও আমার স্ত্রীর নামে প্রায় ডজন খানেক মিথ্যা মামলা করে হয়রানী করছে। তিনি আরো জানান, ১০/০২/২০১৮ তারিখে আমাকে সাময়িক বরখাস্ত করে। অধিকাংশ মামলার রায় আমার পক্ষে থাকলেও গত ২০ মাস ধরে সাময়িক বরখাস্ত থেকে অব্যাহত দিচ্ছে না সভাপতি কুমারেশ মন্ডল রায়।
অথচ, হাইকোর্টের ৩৬৫৭/২০১৫ নং রিটে বেসরকারী মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কোন শিক্ষককে ৬০ দিনের বেশি সাময়িক বরখাস্ত রাখা যাবে না বলে আছে। ২০/০১/২০১৯ইং তারিখে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, যশোর আপীল এন্ড আরবিস্ট্রেশন কমিটির ৭৪তম সভায় ১১ সিদ্ধান্তে উক্ত প্রধান শিক্ষকের সাময়িক বরখাস্ত প্রত্যাহার করা হয় এবং তাকে স্ব-পদে পুনর্বহাল করতে সভাপতিকে চিঠি প্রদান করা হয়। কিন্তু সভাপতি কুমারেশ চন্দ্র রায় আদালত ও বোর্ডের আদেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে প্রধান শিক্ষককে হয়রানী করেই চলেছে। দীর্ঘ ২০ মাস বেতন ভাতা থেকে বঞ্চিত থাকায় প্রধান শিক্ষক এখন মানবেতর জীবন যাপন করছে। তিনি এর প্রতিকার চেয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষসহ প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।