পাইকগাছার কপিলমুনি ১০ শয্যা হাসপাতালের ডাঃ আব্দুর রবকে কৈফিয়ত তলব

0
716

শেখ নাদীর শাহ্, কপিলমুনি(খুলনা):
কর্মস্থলে অনুপস্থিতি, হাসপাতালের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও সেবার মান নিয়ে পাইকগাছার কপিলমুনি ১০ শয্যা হাসপাতালের কর্মরত মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ আব্দুর রব’কে কৈফিয়ত তলব করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা ডাঃ এএসএম মারুফ হাসান।
খুলনা-৬ (পাইকগাছা-কয়রা) সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আক্তারুজ্জামান বাবু গত শনিবার(১১ মে) সকালে আকস্মিক কপিলমুনি ১০ শয্যা হাসপাতাল পরিদর্শন করেন। এ সময় কর্মস্থলে কোন ডাক্তার না থাকায় এবং হাসপাতালের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও সেবার মান নিয়ে সংসদ সদস্য বাবু চরম অসরনআষ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
সংসদ সদস্যের আকস্মিক এ পরিদর্শনের বিষয়টি শিনবার বিভিন্ন অনলাইন ও প্রিন্টিং মিডিয়ায় গুরুত্বের সাথে প্রকাশিত হয়। সামগ্রিক ঘটনায় ১০ শয্যা হাসপাতালের কর্মরত মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ আব্দুর রব’কে কৈফিয়ত তলব ও কর্মস্থলে থাকার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা। এতে উল্লেখ করা হয়েছে, ১১ মে ২০১৯ সংসদ সদস্য খুলনা-৬ আকস্মিকভাবে সকাল ৮টা ১৯ মিনিটে কপিলমুনি ১০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ, কর্মকর্তা-কর্মচারীর কর্মস্থলে উপস্থিত না থাকা, ১০ বেডের বিপরীতে কোন রোগী ভর্তি না থাকা, কর্মকর্তার কর্মস্থলের বাহিরে অবস্থান করাসহ নানা বিষয়ের উপর চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেন। একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তার উক্ত হাসপাতালে পদায়ন থাকা সত্ত্বেও হাসপাতালে এ ধরণের দূরাবস্থা মোটেই কাম্য নয় এবং ইহা সরকারি শৃংখলা ও আপিল বিধিমালা ১৯৮৫ এর পরিপন্থী।

সেহেতু আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কেন উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে সুপারিশ করা হইবে না তাহার ৩ প্রস্থ্য লিখিত জবাব, পত্র জারীর ৩ কর্ম দিবসের মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বরাবর উপস্থাপনের জন্য নির্দেশ ক্রমে অনুরোধ করা হয়।
অনুরূপ আরেকটি পত্রের মাধ্যমে সরকারি নিয়মনীতি উপেক্ষা করে কর্মস্থল কপিলমুনিতে অবস্থান না করে পাইকগাছাতে অবস্থান করে কর্মস্থলের দায়িত্ব পালন করায় কপিলমুনি ১০ শয্যা হাসপাতালের স্বাভাবিক কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনে বিঘœ সৃষ্টি হচ্ছে। এ অবস্থায় সরকারি নিয়ম অনুযায়ী পত্রের মাধ্যমে কর্মস্থলে অবস্থান পূর্বক দায়িত্ব পালনের জন্য ডাঃ মোঃ আব্দুর রব’কে নির্দেশ প্রদান করা হয়।
এ ব্যাপারে জানতে ডাঃ আব্দুর রবকে তার ব্যবহৃত মোবাইলে বার বার ফোন করেও পাওয়া যায়নি। তবে কৈফিয়ত তলব ও কর্মস্থলে অবস্থান থাকা প্রসঙ্গে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ডাঃ মোঃ আব্দুর রবকে পৃথক দুটি পত্র দেওয়া হয়েছে বলে স্বীকার করেছেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও প প কর্মকর্তা ডাঃ এএসএম মারুফ হাসান।
প্রসঙ্গত,দীর্ঘ দিন যাবৎ উপজেলার কপিলমুনি ১০ শয্যা বিশিষ্ঠ হাসপাতালটির চিকিৎসা সেবার মান,জনবল সংকট,রোগী সাধারণের সাথে অসদাচারণ,অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ ও রোগী সাধারণকে সেখানে চিকিৎসায় নিরুৎসাহিতসহ বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে।