পশ্চিমবঙ্গে দুর্গাপূজার ম-পে দর্শনার্থীদের ‘প্রবেশ নিষেধ’

0
242

টাইমস বিদেশ :
দুর্গাপূজা চলাকালীন পশ্চিমবঙ্গের কোনো পূজা ম-পে দর্শনার্থীরা প্রবেশ করতে পারবে না মর্মে নির্দেশ জারি করেছে কলকাতা হাইকোর্ট। করোনাভাইরাস মহামারীর পরিস্থিতিতে পূজা করার অনুমতি দেওয়া ঠিক হবে কিনা তা নিয়ে উচ্ছ আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার পর সোমবার এ নির্দেশ আসে। আনন্দবাজার পত্রিকা জানিয়েছে, এ দিন সরকার পক্ষের ও মামলাকারীর পক্ষের আইনজীবীর সওয়াল-জবাব শোনার পর রাজ্যাটির সব পূজা ম-পকে ‘নো এন্ট্রি জোন’ ঘোষণার নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। নির্দেশে বলা হয়, সব ম-পের চারপাশে ৫ থেকে ১০ মিটার দূরত্ব পর্যন্ত ঘেরাও করে সেই অংশকে ‘নো এন্ট্রি’ জোন ঘোষণা করতে হবে, সেখানে কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া যাবে না। শুধু আয়োজকরা ম-পের ভিতরে প্রবেশ করতে পারবেন। বড় পূজা হলে ২৫ জন ও ছোটগুলোর ক্ষেত্রে ১৫ জন ম-পের ভিতরে প্রবেশ করতে পারবেন। যারা প্রবেশ করবেন তাদের সবার নাম পূজা ম-পের বাইরে প্রতিদিন টাঙিয়ে রাখতে হবে এবং নাম পরিবর্তন করা যাবে না। তালিকার বাইরে কেউ প্রবেশ করতে পারবে না আর এইসব বিধি মানার দায়িত্ব পুলিশ ও আয়োজকদের নিতে হবে, বলেছে আদালত। দর্শনার্থীদের পূজার ‘ভার্চুয়াল কভারেজ’ দেখার পরামর্শও দিয়েছেন আদালত। আদালতের নির্দেশ কতোটা মেনে চলা হয়েছে তা হলফনামা হিসাবে লক্ষীপূজার পর আদালতকে জানাতে হবে রাজ্য কর্তৃপক্ষকে। পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য পুলিশের মহাপরিচালক ও কলকাতার পুলিশ কমিশনারকে ৫ নভেম্বরের মধ্যে হলফনামা জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। মহামারী রোধ করার সরকারি যে গাইডলাইন আছে, তাতে ‘সদিচ্ছার অভাব নেই’ জানিয়ে এর বাস্তব কোনো ‘প্রয়োগ নেই’ বলে মন্তব্য করেছেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়। হাইকোর্টের রায়ের পর মামলাকারীর আইনজীবী জানান, তারা প্রতিটি ম-পকে ‘কন্টেনমেন্ট জোন’ ঘোষণার আবেদন জানিয়েছিলেন, কিন্তু আদালত ‘নো এন্ট্রি জোন’ করার নির্দেশ দিয়েছে। তিনি বলেন, “এখন পুলিশকেই এসব নির্দেশ কার্যকর করতে হবে।”