পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় ভূমিকার জন্যে পুরষ্কার পেল “সানশাইন ব্রিকস”

0
21
ঢাকা অফিসঃ সানশাইন ব্রিকস লিমিটেড, হবিগঞ্জে অবস্থিত মিরপুর সিরামিক এবং খাদিম সিরামিকের সর্বশেষ সংযোজন, জ্বালানী সংরক্ষণকারী টানেল কিলন প্রযুক্তির সফল সংযোজন ও ব্যবহারের মাধ্যমে  নির্মাণ সামগ্রী তৈরির জন্য “গ্রিন চ্যাম্পিয়ন” হিসাবে মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার পেয়েছে।
গ্লোবাল ক্লাইমেট পার্টনারশিপ ফান্ড (GCPF) এবং মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক (MTB),  এপ্রিলের শেষ সপ্তাহে ঢাকাস্থ রেনেসাঁ হোটেলে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশে জলবায়ু সংরক্ষণে আর্থিক অংশীদারিত্ব বৃদ্ধি সম্পর্কিত এক অনুষ্ঠানে সানশাইন ব্রিকস লিমিটেডকে “গ্রিন চ্যাম্পিয়ন” হিসেবে পুরস্কৃত করে।
চেয়ারম্যান  আসিফ আরিফ তাবানী, ভাইস-চেয়ারম্যান  সাকিফ আরিফ তাবানী এবং পরিচালক আয়েশা সানা আসিফ তাবানী এই পুরষ্কার গ্রহণ করেন ।
বর্তমানে সানশাইন ব্রিকসে অটোমেটেড ইউরোপিয়ান প্রযুক্তিতে কম জ্বালানি ব্যবহারের মাধ্যমে সিরামিক ব্রিক এবং ব্লক তৈরি হচ্ছে। এই পণ্যের অনেকগুলোই দেশে প্রথমবারের মত উৎপাদন হচ্ছে। নান্দনিকতার উৎকর্ষের জন্যে এই পণ্যগুলো দেশের বাইরে অনেক জনপ্রিয়। আর তাছাড়া এই কারখানাতে কয়লার বদলে ব্যবহার হচ্ছে প্রাকৃতিক গ্যাস। কারখানায় উপরের স্তরের মাটি না ব্যবহার করে শুধুমাত্র নির্দিষ্ট মাটির খনি থেকে ভেতরের দিকে ৮০ থেকে ১০০ ফিট পর্যন্ত মাটি ব্যবহার করা হচ্ছে।
পাশাপাশি, টানেল কিলন টেকনোলজির মাধ্যমে উৎপাদন প্রক্রিয়া সম্পাদন হবার কারণে দেশের একই ধরনের অন্যান্য কারখানার তুলনায় এখানে ২০ ভাগ কম জ্বালানী ব্যবহার হচ্ছে। কারখানায় উৎপাদিত তাপ বের হতে না দিয়ে টানেল দিয়ে আবার পুনরায় সিরামিকের কাঁচা ব্রিক ও ব্লক ড্রাই করবার কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে। যাতে করে এই তাপ পরিবেশে ছড়িয়ে পড়ে পরিবেশকে উত্তপ্ত না করে ফেলে। সবদিক দিয়ে নির্মাণ পণ্য উৎপাদনকে পরিবেশ-বান্ধব করবার জন্যে সরকারের প্রচেষ্টার সাথে এই কারখানা সম্পূর্ণ সঙ্গতিপূর্ণ ভূমিকায় চলছে।
সুইজারল্যান্ড ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান জিসিপিএফ কম জ্বালানী ব্যবহার ও প্রযুক্তিগত উৎকর্ষের মাধ্যমে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষাকে উৎসাহিত করে আসছে। এজন্যে “গ্রীন চ্যাম্পিয়ন” নামে সম্মাননা প্রদানের মাধ্যমে বাংলাদেশের নতুন কলকারখানাগুলোকে পরিবেশবান্ধব করবার জন্য উদ্বুদ্ধ করছে তারা। তারই ফলশ্রুতিতে সানশাইন ব্রিকস লিমিটেড বাংলাদেশে পরিবেশবান্ধব কারখানা হিসেবে প্রথমবারের মত এই পুরষ্কার গ্রহণ করল।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here