নির্বাচনের পাশাপাশি আন্দোলনের প্রস্তুতির নির্দেশ আসছে বিএনপি’র

0
437

ঢাকা ব্যুরো : আসছে একাদশ নির্বাচন, খালেদা জিয়ার মুক্তি, আন্দোলন, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া ও নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখাসহ নানা প্রসঙ্গে দলের শীর্ষ নেতাদের জরুরি বৈঠক ডেকেছে বিএনপি। সোমবার ও মঙ্গলবার রাজধানীর গুলশানে বিএনপির চেয়ারপার্সন কার্যালয়ে এ বৈঠক করেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ম্যারাথন বৈঠকে উপস্থিত থাকতে নির্দেশ দেয়া হয় স্থায়ী কমিটির সদস্য, ভাইসচেয়ারম্যান, উপদেষ্টা পরিষদ ও যুগ্ম সম্পাদক এবং সাংগঠনিক সম্পাদকদের।
শনিবার বিকেলে এতথ্য নিশ্চিত করেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান। বৈঠকে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে সারাদেশে, বিভাগীয়, জেলা, উপজেলার পর্যায়ের নেতাদের নির্দেশ দেয়া হতে পারে। একইসঙ্গে চূড়ান্ত আন্দোলনের জন্য প্রস্তুতি নিতেও বলা হবে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে। তবে সারাদেশে কমিটি গঠনে বাকি থাকা জেলা, উপজেলা ও পৌরসভার কমিটি ঘোষণা দেয়ার জন্য দাবি তুলতে পারেন শীর্ষ নেতারা।
বৈঠকে চূড়ান্ত কর্মসূচি দেয়ার চিন্তা-ভাবনা রয়েছে দলটির। দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার কারামুক্তি, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবি, সমমনা রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে বৃহত্তর ঐক্যের বিষয়টিও জড়িয়ে আছে। শেষ পর্যন্ত ঐক্য স্থাপন না হলে কর্মসূচি এক রকম, আর ঐক্য গড়ে উঠলে কর্মসূচির ধরন পাল্টে যাবে।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির একাধিক সদস্য মানবকণ্ঠকে বলেন, খালেদা জিয়ার মুক্তি, আসন্ন নির্বাচন নিরপেক্ষ করার দাবিতে কর্মসূচিও পালিত হবে, নির্বাচনেও অংশ নেবে বিএনপি। এক্ষেত্রে দলের সব সাংগঠনিক সক্ষমতা দেখানোর সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়েছে। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি বৃহত্তর রাজনৈতিক ঐক্যের জন্য দলীয় প্রচেষ্টা অগ্রাধিকার পেলেও এখন সামনে এসেছে দলীয় প্রধানের মুক্তির বিষয়টি।
দলের চেয়ারপার্সনের মুক্তি এবং নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতেও কর্মসূচি দেয়া হবে। এমনকি আন্দোলনের মধ্য দিয়ে নির্বাচনেও অংশ নেবে বিএনপি। আর বৃহত্তর ঐক্যের চেষ্টাও অব্যাহত থাকবে। তবে বৃহত্তর ঐক্যের আগে কর্মসূচি না দেয়ার চিন্তা-ভাবনা না থাকলেও এবার নিজেদের মনোভাব পাল্টেছেন নেতারা।