নর্দার্ন ইউনিভার্সিটি খুলনায় আন্ত:বিভাগ সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ও নবীনবরণ অনুষ্ঠিত

0
9

খবর বিজ্ঞপ্তি
নর্দান ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এন্ড টেকনোলজি খুলনায় (এনইউবিটিকে) আন্ত:বিভাগ সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা ও নবীন বরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাসে দুই দিনব্যাপী এ আয়োজনের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন নর্দান এডুকেশন গ্রæপের চেয়ারম্যান ও এনইউবিটিকে এর প্রতিষ্ঠাতা উপাচার্য প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মো. আব্দুল্লাহ।
রোববার সকাল ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাসে একক ও দলীয় নাচের মাধ্যমে আন্ত:বিভাগ সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় দিনের অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপর দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের (ফল-২০২৩ ও স্প্রিং-২০২৪ সেমিস্টার) নবীন শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেওয়া হয়।
নবীন বরণ অনুষ্ঠানে প্রফেসর ড. আবু ইউসুফ মো. আব্দুল্লাহ বলেন, “দক্ষিণাঞ্চলের উচ্চশিক্ষায় নর্দান ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এন্ড টেকনোলজি খুলনা বড় অবদান রাখছে। এটিকে আরো বাড়াতে স্থায়ী ক্যাম্পাসের কার্যক্রম চলমান। স্থায়ী ক্যাম্পাসে পাঠদান শুরু হলে এই বিশ্ববিদ্যালয় দক্ষিণাঞ্চল তথা সারা বাংলাদেশের শিক্ষায় আরো ভ‚মিকা রাখবে। যেহেতু বর্তমানে শুধু ক্লাসের পড়াই শেষ নয়। আমাদের এখন আনন্দের মাধ্যমে পড়াশুনা করতে হবে। সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয় নিয়মিতই আয়োজন করছে এমন সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা।”
নর্দান ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এন্ড টেকনোলজি খুলনার রেজিস্ট্রার ড. মো. শাহ আলমের সভাপতিত্বে নবীন বরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. এটিএম জহিরউদ্দিন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন প্রফেসর জালাল উদ্দিন আহমেদ, কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. আশিকুদ্দিন মো. মারুফ, বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের এডভাইজরি ডিন মো. রবিউল ইসলাম, বিশিষ্ট সংগঠক ও সমাজসেবক আজগর আলী বিশ্বাস তারা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি শেখ তুহিনুল ইসলাম তুহিন ও শেখ হাসান ইফতেখার চালু।
অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে দুপুর আড়াইটায় আধুনিক ও ব্যান্ড সঙ্গীতের প্রতিযোগিতা শুরু হয়। পরে বিকেল ৫টায় অনুষ্ঠানের সমাপনী ও বিজয়ীদের নাম ঘোষনা করা হয়। দুইদিনব্যাপী এই প্রতিযোগিতায় প্রথম দিনে ইংরেজি কবিতা আবৃত্তিতে প্রথম কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের ফাতেমা আকতার ইলমা, যৌথভাবে দ্বিতীয় হয় সিএসই বিভাগের আনিকা উলফাত ও ইংরেজি বিভাগের শিরমাইন আক্তার রিয়া, এবং তৃতীয় হয় ইংরেজি বিভাগের নাসিম আহমেদ। বাংলা কবিতা আবৃত্তিতে যৌথভাবে বিজয়ী হয় সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগের জান্নাতুল ফেরদৌস মিতু ও সিএসই বিভাগের আনিকা উলফাত, দ্বিতীয় হয় সিএসই বিভাগের ফাতেমা আক্তার ইলমা, এবং তৃতীয় হয় সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগের নিপা ঢালী, সঙ্গীত ক্যাটাগির-১ (দেশাত্মবোধক, ফোক, রবীন্দ্র ও নজরুল সঙ্গীত) এ প্রথম হয় ইলেক্ট্রিকাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের সানজিদা হক সিনথিয়া, দ্বিতীয় হয় আইন বিভাগের মুস্তাফা ফাহিম শুভ, এবং যৌথভাবে তৃতীয় হয় সিএসই বিভাগের সরদার রাকিবুল ইসলাম এবং ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের সাজরিল আকতার সাকিন।
দ্বিতীয় দিনে অনুষ্ঠিত একক নৃত্য ক্যাটাগরিরে বিজয়ী হয় ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের তিথী হালদার, দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয় ইংরেজি বিভাগের শাওন বাছার ও শারদীয়া চক্রবর্তী। এরপর দলীয় নৃত্য ক্যাটাগরিতে চ্যাম্পিয়ন হয় সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগ, দ্বিতীয় হয় ইংরেজি বিভাগ ও তৃতীয় হয় স্থাপত্য বিভাগের শিক্ষার্থীরা। সর্বশেষ অনুষ্ঠিত সঙ্গীত ক্যাটাগরি-২ (আধুনিক ও ব্যান্ড সঙ্গীত) এ বিজয়ী হয় স্থাপত্য বিভাগের মাহমুদুর রেজোয়ান, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় হয় সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শেখ ফাহিদুজ্জামান অমি ও তাসনিয়া ইসলাম।
শিক্ষার্থীদের মধ্যে সহশিক্ষা কার্যক্রমকে গতিশীল করতে এবং দেশিয় সুস্থ সাংস্কৃতিক চর্চা বৃদ্ধিতে এমন আয়োজন বড় ভ‚মিকা রাখবে বলে আশা রাখেন আয়োজকরা।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here