নতুন কোচ বড় কোনো ‘ফ্যাক্টর’ নয়

0
406

র্স্পোটস ডস্কে:
ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের আগে ‍হুট করেই দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশের নতুন কোচ স্টিভ রোডস। দীর্ঘদিন আগে নিয়োগ পেলেও রোডস কাজ শুরু করেছেন দুদিন হলো।

শিষ্যদের নিয়ে কাজ করার বেশি সময় পাচ্ছেন না ইংলিশ কোচ। পরশু বাংলাদেশ দল যাচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে। ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জে ২০১৪ সালের পর আবার দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। সফরের ঠিক আগ মুহূর্তে কোচ কতুটুকুই বা গোছাতে পারবেন? কতটুকুই বা পরিকল্পনা সাজাতে পারবেন? কোচ বড় কোনো ‘ফ্যাক্টর’ হবেন না তো এই সফরে?

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের টেস্ট দলে ফেরা কাজী নুরুল হাসান সোহান অভয় দিলেন। জানালেন, নতুন কোচ বড় কোনো ‘ফ্যাক্টর’ হবেন না। আজ মিরপুরে অনুশীলন শেষে সোহান বলেন, ‘কোচ নতুন হলেও খেলোয়াড় কিন্তু সবাই পুরোনো। আমরা অনেকদিন ধরেই খেলছি একসঙ্গে। আমার কাছে মনে হয় না, নতুন কোচের বিষয়টি বড় কোনো ‘ফ্যাক্টর’। আমাদের মূল লক্ষ্য থাকবে দল হিসেবে ভালো থাকার।

‘কোচ আসার আগে এবং কোচ আসার পর সবকিছুই একইরকম আছে। কোচের একটা পরিকল্পনা থাকে। পরিকল্পনায় এজন্য কিছু পরিবর্তন আছে হয়ত। আমরা দুই দিন কাজ করেছি কোচের সঙ্গে। এখন সামনে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফর আছে। সিনিয়র জুনিয়র সবাই ভালো করার জন্য পরিকল্পনা মেনে এগোচ্ছে’- যোগ করেন সোহান।

নিজেকে একটু দুর্ভাগা ভাবতেই পারেন সোহান! ঘরোয়া ক্রিকেটে পারফর্ম করে দলে সুযোগ মেলে তার। কিন্তু একাদশে থাকার সুযোগ হয় না। কম্বিনেশন পরিবর্তনে না খেলেই বাদ পড়েন। আবার দলে ঢোকেন। শেষ এক বছর এভাবেই আসা-যাওয়ার মধ্যে আছেন উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যান। আসা-যাওয়ার মাঝে থাকলেও নিজের কাজটা ঠিকঠাক মতো করে রাখছেন। সুযোগ পেলেই যেন বড় মঞ্চ রাঙাতে পারেন সেই পরিকল্পনা তার।

‘সব সময় লক্ষ্য থাকে বাংলাদেশের হয়ে খেলার। দেশের হয়ে যে কোনো ফরম্যাটেই খেলা অন্যরকম ব্যাপার। এখন টেস্ট দলে সুযোগ পেয়েছি, লক্ষ্য থাকবে সুযোগ পেলে ভালো করার। ভালো খেললেও বাদ পড়াৃ.এটা আসলে মাথায় আসে কিন্তু এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করি। যেই জিনিস আমার হাতে নেই সেই জিনিস নিয়ে ভেবে লাভ নেই। সব সময় লক্ষ্য থাকে যেখানেই সুযোগ থাকে ভালো করার’-বলেছেন সোহান।

ব্যাটিংয়ে নিয়মিত নিজের দুর্বল জায়গাগুলো নিয়ে কাজ করেছেন সোহান। ঘরোয়া ক্রিকেটে তার পারফরম্যান্সও বলছে একই কথা। তাইতো উন্নতির সূচক ঊর্ধ্বগামী।

২০১৪ সালে সবশেষ ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে বাংলাদেশ কোনো ফরম্যাটে একটি ম্যাচও জিততে পারেনি। এবারও একই চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে টাইগারদের জন্য। ওয়েস্ট ইন্ডিজ রয়েছে দুর্দান্ত ফর্মে। বাংলাদেশের শেষ সিরিজটি খারাপ হয়েছে। বাস্তবতা মেনেই সিরিজটিকে কঠিন বলছেন সোহান, ‘এই সফরটা কঠিন হবে, অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং হবে। আমাদের শেষ সিরিজটা ভালো যায়নি। আমরা একত্রে দলের সবাই সেই চ্যালেঞ্জটা নেওয়ার জন্য প্রস্তুত আছি। আমরা আমাদের শতভাগ দিতে পারলে ভালো কিছু অবশ্যই হবে।’