নতুন করের পণ্য উৎপাদন না করতে খুলনার তিন প্রতিষ্ঠানকে ভোক্তা অধিকারের পরামর্শ

0
583

নিজস্ব প্রতিবেদক:
হাইকোর্টের রায়ের আলোকে নতুন করে পণ্য উৎপাদন না করতে খুুলনাঞ্চলের তিন প্রতিষ্ঠানকে পরামর্শ দিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। একই সাথে আজকের মধ্যে তাদের পণ্যগুলো বাজার থেকে প্রত্যাহার করার ও নির্দেশ দিয়েছে। এ সময়ের মধ্যে পণ্য প্রত্যাহার না করা হলে, রোববার থেকে জরিমানা করা হবে। প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে, খুলনার ফুলতলার মধুমতি সল্ট ইন্ড্রাস্ট্রিজ, দৌলতপুরের মধু প্রক্রিয়াজাতকরণ প্রতিষ্ঠান গ্রীণলেন মিল্ক প্রডাক্ট ও হলুদের গুড়া উৎপাদনকৃত প্রতিষ্ঠান কুষ্টিয়া সান ফুড।
ভোক্তা অধিদফতরে খুলনা বিভাগীয় উপ-পরিচালক এস এম নাজিমুল ইসলাম জানান, উল্লিখিত প্রতিষ্ঠানগুলোকে হাইকোর্টের নির্দেশ মেনে নতুন পণ্য উৎপাদন না করতে গতকাল পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তাদের এসব পণ্য বাজার থেকে আজকের মধ্যে প্রত্যাহার করতে বলা হয়েছে।
বিএসটিআই উল্লিখিত তিন প্রতিষ্ঠানকে দশ দিনের সময় দিয়ে কারণ দর্শাও নেটিশ দিয়েছে। নোটিশে বলা হয়েছে, অনুন্নত খাদ্য উৎপাদনের জন্য কেন তাদের লাইসেন্স বাতিল করা হবে না। দশ দিনের সময় বুধবার শেষ হয়েছে।

২৮ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা: ভোক্তা অধিকারের সহকারী পরিচালক সিকদার শাহিনুল আলম জানান, অতিরিক্ত মূল্য নেওয়া, মূল্য তালিকা না থাকা, আমদানীকারকের নাম না থাকা ইত্যাদি কারণে ময়লাপোতা মোড়ের গরুর মাংস বিক্রেতা শাওন মিট সপ, বাবু মিট সপ, রাজু মিট সপ, হাজি মিট সপ, চান মিয়া মিট সপ, মাছুম মিট সপ, সেভ এন সেফ দৌলতপুর, জননী ট্রেডাস, গল্লামারীর খান ডিপার্টমেন্টাল ষ্টোর, খুলনা ড্রিংকিং ওয়াটার, সেভ এন সেফ নিউ মার্কেট, দেশ পানি ড্রিংকিং ওয়াটার, আয়শা ফুডস প্রডাক্টস, প্রান্তিক ফুড প্রডাক্টস, গল্লামারী ঐশী মেডিকেল, স্বপ্না ষ্টোর, ঢাকা ওয়াটার ও খুলনার অভিজাত হোটেল ক্যাসেল সালামকে সর্বমোট ৯২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। পরিমাপে কম দেওয়ায় গত মাসে রূপসার ফারুক ব্রিকসকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা, মূল্য তালিকা না থাকায় শান্তিধাম মোড়ের বাদশা মিয়া মেমরিয়াল ক্লিনিককে দশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।