নগরীতে ২শ’ ৩০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন ঝুঁকিপূর্ণ, সংস্কারের দাবি

0
267

নিজস্ব প্রতিবেদক: নগরীতে ২শ’ ৩০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। ভবনগুলো সংস্কারের জন্য তালিকা ইতোমধ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব বরাবর পাঠানো হয়েছে। যদিও এখনো কোনটির কাজ শুরু হয়নি। তবে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জানিয়েছেন পর্যায়ক্রমে তালিকাভুক্ত সবগুলো বিদ্যালয়ের সংস্কার কাজ শুরু হবে।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, খুলনা নগরী ও ৯ উপজেলায় ২শ’ ৩০টি ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয়ের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। এরমধ্যে কয়রা উপজেলায় ২৯টি, খুলনা সদরে ২৯টি, ডুমুরিয়া উপজেলায় ৫৭টি, তেরখাদা উপজেলায় ২৫টি, দাকোপ উপজেলায় ১২টি, দিঘলিয়া উপজেলায় ৪টি, পাইকগাছা উপজেলায় ২৩টি, ফুলতলা উপজেলায় ১৮টি, বটিয়াঘাটা উপজেলায় ২০টি ও রূপসা উপজেলায় ১৩টি বিদ্যালয়ের ভবন ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।
সূত্রটি আরও জানায়, তালিকাভুক্তির পর ২০১৯ সালের ২৮ এপ্রিল প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব বরাবর পাঠানো হয়েছে। যার অনুলিপি প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, বিভাগীয় উপ-পরিচালককেও পাঠানো হয়। প্রায় এক বছর অতিবাহিত হলেও এখনো কোন ভবনের পুনর্নির্মাণ বা সংস্কার কাজ শুরু হয়নি।
একাধিক সূত্র জানায়, খুলনা জেলা ও মহানগরে অনেক বিদ্যালয়ের ভবন পরিত্যক্ত করা হয়েছে। কোথাও জরাজীর্ণ ভবনে জীবনের শিশুদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ক্লাস করানো হচ্ছে। আবার কোথাও ভবনের বেহাল অবস্থার কারণে অন্য স্থানে টিনশেডের ঘর তৈরি করে অনেক বিদ্যালয়ের কার্যক্রম পরিচালানা করা হচ্ছে। আবার কিংবা খোলা আকাশের নিচে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করানো হচ্ছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে পাশের কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মাদ্রাসা, মন্দিরে অস্থায়ীভাবে পাঠদানের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এর ফলে দুটি বিদ্যালয়কে সমন্বয় করে একই স্থানে ক্লাস করাতে হচ্ছে। এতে করে দুটি বিদ্যালয়েরই শিক্ষার্থীর সংখ্যা দিনের পর দিন কমে যাচ্ছে।
এ বিষয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এ এস এম সিরাজুদ্দোহা বলেন, ‘খুলনায় ২৩০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন পুনর্নির্মাণ ও সংস্কারের জন্য ইতোমধ্যে মন্ত্রণালয়ে তালিকা পাঠানো হয়েছে। শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর অনেক বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের জন্য দরপত্র আহ্বান করেছে। প্রক্রিয়া শেষ হলে সবগুলো যাচাই-বাছাই করে একযোগে সবগুলোর কাজ শুরু না হলেও পর্যায়ক্রমে এর কাজ শুরু হবে। আশা করি শীঘ্রই কাজ শুরু করতে পারবো।