দৌলতপুরে মেলায় মাদকের আসর : জোনাকি র‌্যাফল ড্র’র নামে প্রতারণা

0
440

টাইমস প্রতিবেদক : খুলনা নগরীর দৌলতপুরে মেলার নামে চলছে মাদক ও জুয়ার আসর। কেডিএ’র কল্পতরু মাঠে গত ২১ ডিসেম্বর থেকে এই মেলা শুরু হয়েছে। সেখানে প্রতিদিন রাতে হাউজি, চর্কা, গুটিসহ বিভিন ধরনের জুয়ার আসর বসছে। এছাড়া রোববার থেকে শুরু হয়েছে জোনাকি র‌্যাফেল ড্র। ১০ টাকার বিনিময়ে লাখ টাকার পুরস্কার জেতার আশ্বাস দিয়ে প্রতিদিন লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এই প্রতারক চক্র।
অভিযোগ উঠেছে, মেলায় মাদক ও জুয়ার আসর বসলেও এ ব্যাপারে নিষ্ক্রিয় দৌলতপুর থানা পুলিশ। উল্টো জুয়ার টাকা ও র‌্যাফেল ড্র পুরুস্কার পুলিশি প্রহরায় পৌছে দেওয়া হচ্ছে। তামান্নার রেশ কাটতে না কাটতেই নতুন করে জোনাকি র‌্যাফেল ড্র নিয়ে ক্ষোভ বিরাজ করছে স্থানীয়দের মাঝে।
স্থানীয়রা জানান, সার্কাস ও মেলার জন্য অনুমতি নিয়ে গত ২১ ডিসেম্বর এই মেলা শুরু হয়। কেএমপির পক্ষ থেকে ১৩টি শর্তে এই মেলার অনুমতি দেওয়া হয়। এর মধ্যে অন্যতম ছিলো মেলায় কোনা ধরনের হাউজি, জুয়া বা র‌্যাফেল ড্র চালানো যাবে না। মাদকদ্রব্যের বিষয় ছিলো কঠোর নিষেধাজ্ঞা। কিন্তু বাস্তবে দেখা গেছে উল্টো চিত্র।
সরজমিনে কেডিএ কল্পতরু মাঠে গিয়ে দেখা গেছে, মেলাকে কেন্দ্র করে মাদক ও জুয়ার আসর বসছে সেখান। দৌলতপুর, খালিশপুরসহ আশপাশের মাদক বেচাকেনার কেন্দ্রস্থল পরিণত হয়েছে মেলা। এছাড়া সন্ধ্যার পর সেখানে বসছে হাউজি, চর্কা, গুটিসহ বিভিন্ন ধরনের জুয়া। সবচেয়ে অবাক বিষয় জুয়ায় আসার জন্য ওই এলাকায় মাইকিং হচ্ছে। জোনাকি র‌্যাফেল ড্রয়ের টিকিট বিক্রি হচ্ছে পুরো শহরজুড়ে।
স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিন ৭০/৮০টি ইজিবাইক করে র‌্যাফেল ড্রয়ের টিকিট বিক্রি হচ্ছে। ১০ টাকা মূল্যের লটারির টিকিট বিক্রির প্রথমদিনই প্রায় ৩০/৩৫ লাখ টাকার টিকিট বিক্রি হয়েছে। পুরস্কার দেওয়া হয়েছে সর্বসাকুল্যে ৫ লাখ টাকার। বাকি টাকা লটারির আয়োজক ও অন্যান্য ব্যক্তিদের পকেটে ঢুকছে।
গত ১০ ডিসেম্বর খুলনা ‘জেলা আইন-শৃংখলা’ এবং ‘সন্ত্রাস ও নাশকতা প্রতিরোধ’ কমিটির অনুষ্ঠিত মাসিক সভায় মাইকিং করে লটারি, জুয়া এবং এ ধরনের কাজ বন্ধ করা হবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। প্রয়োজনে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়েছিল। তবে সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হয়নি।
খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (কডিএ) প্রধান প্রকৌশলী মোঃ সাবিরুল আলম বলেন, পুলিশের অনুমতি নিয়ে তাঁতবস্ত্র মেলার নামে কেডিএ’র কাছে মাঠ ব্যবহারের অনুমতি চেয়েছিলো। কিছু শর্ত সাপেক্ষে মেলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে সেখান লটারী বা জুয়া চললে সেটা দেখার দায়িত্ব প্রশাসনের।
পুলিশর সহযোগিতার অভিযোগ অস্বীকার করে দৌলতপুর থানার ওসি মোঃ হুমায়ুন কবির বলেন, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা দৌলতপুর কেডিএ কল্পতরু মাঠে বিজয় মেলা করার জন্য কেএমপি’র নিকট থেকে অনুমতি নিয়েছে ২১ ডিসেম্বর। সেখানে সার্কাস হওয়ার কথা। তবে মাদক বা জুয়ার আসর বসছে কিনা তিনি খোঁজ নিয়ে দেখবেন।